জাতীয়হোমপেজ স্লাইড ছবি

কৃষির গৌরবময় অগ্রযাত্রায় পথ হারাবে না বাংলাদেশ

কায়সার সারোয়ার: কৃষি নিয়ে স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জহরলাল নেহেরু একদা বলেছিলেন, Everything can wait, but not Agriculture.

কৃষি বিশেষ করে ফসল উৎপাদন এখনও প্রকৃতি নির্ভর ব্যবস্থা। নিদির্ষ্ট প্রাকৃতিক পরিবেশ পাওয়া না গেলে শত চেষ্টা করেও ফসল উৎপাদন অসম্ভব। আর ফসল উৎপাদন না হলে, দেখা দেবে দূর্ভিক্ষ। মৃত্যু। ফসল না থাকলে গবাদিপশুও নেই। কারন পশু-পাখিরাও খাবারের যোগানের জন্য শস্য উৎপাদনের উপর নির্ভরশীল।

করোনা পরবর্তী সময়ে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কৃষকরা নীরবে তাদের কাজ করে চলেছেন। কৃষকদের মধ্যে টেকসই প্রযুক্তি সম্প্রসারণ, কৃষি পরামর্শ প্রদান, কৃষকের মাঝে সরকারি সহায়তা প্রদান, কৃষি যান্ত্রিকীকরণ, অনাগ্রহী জমির মালিকদের কৃষিতে আগ্রহী করে তোলা সহ নানা কাজের মাধ্যমে কৃষকদের সরাসরি পাশে থেকে কাজ করে চলেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। এ কাজ করতে গিয়ে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সহ বিভিন্ন পযার্য়ের কর্মকর্তা- কর্মচারীগন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। সাধারন ছুটির পুরোটা সময় এই অধিদপ্তরের ব্লক, উপজেলা, জেলা ও অঞ্চলের সকল অফিসে সার্বক্ষণিক কর্মতৎপরতা বজায় ছিল। ধান কর্তনের একটি তাড়া থাকায় এই কাজকে বেগবান করার জন্য স্বয়ং মাননীয় কৃষিমন্ত্রী মহোদয় সরাসরি প্রত্যন্ত হাওড় এলাকায় উপস্থিত হয়ে যন্ত্রের মাধ্যমে ধান কাটা পযবেক্ষণ করেছেন। কৃষকদের উৎসাহ দিয়েছেন। সাধারন ছুটি চলাকালীন সময়ে করোনা ঝুঁকি উপেক্ষা করে দাপ্তরিক কাজে তাঁর এমন ছুটে চলা দেশবাসীর সামনে কৃষি উৎপাদন বিষয়ে সরকারের তৎপরতাকেই দৃশ্যমান করেছে।

ব্যক্তিগত এবং সামাজিক জীবনে সবচেয়ে অগ্রসরমান মানুষটিও নতুন কোন প্রযুক্তি বা ধারনাকে চট করে গ্রহন করেন না। সাধারনত প্রতারিত হওয়ার ভয়, অজানা ভবিষ্যৎ সহ বিভিন্ন চিন্তার কারনে প্রযুক্তি সুফল দৃশ্যমান না হওয়া পযর্ন্ত আমরা প্রযুক্তি গ্রহনে অনীহা প্রকাশ করি। কৃষকও তার ব্যতিক্রম নন। আর বিষয়টি যেহেতু সরাসরি তার জীবিকার সাথে জড়িত তাই নতুন প্রযুক্তি গ্রহনে তারা আরও বেশী সর্তক থাকেন। প্রযুক্তি গ্রহনে কৃষকের কাছে কেবল উৎপাদনই শেষ কথা নয়। কৃষকের ঠকে যাওয়ার ইতিহাসও কম নয়। ভাল ভাল কথা বলে ব্যক্তি স্বার্থ উদ্ধারের প্রতারনামূলক আচরন মানব ইতিহাসের মতই প্রাচীন। শুভ উদ্যোগকেও তাই সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখা হয় যার যথেষ্ট যৌক্তিক কারন গ্রামীন সমাজেও আছে। এরকম অনেক দৃশ্যমান আর অনেক অদৃশ্য বিষয় বিবেচনা করে কৃষক নতুন প্রযুক্তি, নতুন ফসল বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেন। গবেষনা প্রতিষ্ঠানের প্রযুক্তি কিংবা দেশের অন্য অঞ্চলের প্রাচীন কোন চাষাবাদ পদ্ধতি কিংবা সরাসরি একই রকম বিদেশী পরিবেশ থেকে আনা নতুন ফসল নিয়ে কৃষকের কাছে অনবরত কড়া নেড়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তর, মৎস অধিদপ্তর সহ কৃষি সংশ্লিষ্ট সকল প্রতিষ্ঠান। কড়া নাড়ার সময় কেউ হয়ত খুশি মনে গ্রহন করেছে। কেউ হয়ত অনুরোধে ঢেঁকি গিলেছে। কেউ হয়ত সরকারি সহায়তার কারনে গ্রহন করেছে।

উদাহরণ হিসেবে এবারের সবজি বীজ বিতরনের কথাই বলা যায়৷ দেশের অসংখ্য কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে সবজির বীজ, চারা, ফলের চারা এবার বিতরন করা হয়েছে। এসব উদ্যোগে অনেক জায়গাতেই অর্থায়ন ও সহযোগিতা করেছে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগন, উপজেলা প্রশাসন, স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিগন। বেশ কিছু জায়গায় ত্রানের সাথে সবজি বীজ দেওয়া হয়েছে। এ সকল কিছুই করা হয়েছে কৃষি জমি যেন সামনে পতিত না থাকে, বসতবাড়িতে যেন সবজি চাষ যার উদ্বৃত্তটুকু শহরের চাহিদা পূরণে সহায়ক হবে। রাষ্ট্রীয়ভাবেও বসতবাড়ির আঙ্গিনায় সবজি চাষের জন্য উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে।

কৃষি বিপননে সহায়তার জন্য এগিয়ে এসেছে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ, বাংলাদেশ রেলওয়ে। কৃষকের পন্য বিক্রির জন্য তৈরী করা হয়েছে www.foodfornation.gov.bd। অনেক জায়গায় উপজেলা কৃষি অফিস সরাসরি কৃষকের পন্য ভোক্তার দোরগোড়ায় পৌঁছে দিচ্ছে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় উপজেলা প্রশাসন স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত সবজি কৃষক থেকে ক্রয় করে ত্রান হিসেবে বিতরন করেছেন।

বর্তমান সময়ে অনেকেই কৃষি খামার করতে আগ্রহী হয়েছেন। এ কাজে সহায়তা করার জন্য সরকারের তিনটি দপ্তর দেশের প্রতিটি উপজেলায় রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস শস্য, ফল, ফুল, সবজি সহ আনুসঙ্গিক বিষয়ে; উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিস পোল্ট্রি, ডেইরি, হাঁস, ছাগল সহ আনুসঙ্গিক বিষয়ে এবং উপজেলা মৎস অফিস মাছ চাষে সরাসরি পরামর্শ প্রদান করেন। দেশের প্রতিটি উপজেলার জন্য সরকার সমৃদ্ধ উপজেলা পোর্টাল তৈরি করে রেখেছেন যেখানে উপজেলা পযার্য়ের সকল দপ্তরের যোগাযোগের ঠিকানা ও আনুসঙ্গিক তথ্যাদি দেওয়া আছে। বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (www.bangladesh.gov.bd) এ প্রবেশ করে সহজেই প্রতিটি উপজেলার উপজেলা পোর্টালে প্রবেশ সম্ভব।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker