ছুটিহোমপেজ স্লাইড ছবি

নাগরিক ক্লান্তি দূর করতে ঘুরে আসুন তিন নদীর মোহনা

মৃন্ময়ী মোহনা: মাছে ভাতে বাঙালী আর নদীমাতৃক দেশ বাংলাদেশ- খুব ‘কমন ডায়লগ’ আমাদের বাংলাদেশীদের জন্য। এ দুটোর যুগলবন্দী স্বাদ নিতে ভ্রমণপিপাসু মানুষের জন্য সব’চে সুন্দর জায়গা হলো চাঁদপুর। মাত্র ৩-৪ ঘন্টা সময় ব্যয়ে যাওয়া যায় সেখানে। সদরঘাট থেকে একটু পরপরই লঞ্চ ছেড়ে যায় চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে। বোগদাদিয়া, ময়ূর, রফরফ -ভালো লঞ্চগুলোর মধ্যে অন্যতম। শেষ লঞ্চ রাত ১২.৩০ মিনিটে। ১০০ টাকার বিনিময়ে লঞ্চের ছাদে বসেই হয়ে যেতে পারে চমৎকার এক ভ্রমণ।
আর পূর্ণিমা হলে তো কথাই নেই। আকাশে চাঁদ, নদীর বিস্তৃত জলরাশি, লঞ্চের আওয়াজ, সবমিলিয়ে এক অদ্ভুত রোমাঞ্চকর পরিবেশের স্বাদ পাওয়া যায়। চাঁদপুরের সব’চে আকর্ষণীয় স্থান হলো তিন নদীর মোহনা। পদ্মা,মেঘনা আর ডাকাতিয়া নদী মিলেছে এখানে। চাঁদপুর নেমে অটোতে বা পায়ে হেঁটেই চলে যাওয়া যায় বড় স্টেশন নামক জায়গায়।যেখানে ট্রলার পাওয় যায়। প্রতিজন ৫০/- হিসেবে আধাঘন্টার জন্য ট্রলারে নদীর বুকে ভেসে বেড়ানোর মতো অনুভূতি আর হয়না। ট্রলার দিয়ে ভাসতে ভাসতে দেখা মিলবে ছোট ছোট চরের। যা মেঘনার চর নামে পরিচিত।
  
চাঁদপুরের অন্যতম আকর্ষণ ইলিশ মাছ। প্রতিটি খাওয়ার হোটেলেই ইলিশ মাছ পাওয়া যায়। দরদাম করে মনের আনন্দে খেতে পারেন নদীর টাটকা ইলিশ। মাত্র ৫০০-৬০০/- টাকার বিনিময়েই চাঁদপুর ভ্রমণ করা সম্ভব। নদীর বুকে ভেসে বেড়াতে তাই যেকোন দিন চলে যান চাঁদপুর।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker