মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭
webmail
Sat, 07 Jan, 2017 03:51:29 PM
নিজস্ব প্রতিবেদক
নতুন বার্তা ডটকম

ঢাকা: বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত দুই জঙ্গি নুরুল ইসলাম মারজান ও সাদ্দাম হোসেনের সঙ্গে মোটরসাইকেলে আরো একজন জঙ্গি ছিলেন। পুলিশ বলছে, তাদের সঙ্গে গোলাগুলির সময় ওই জঙ্গি পালিয়ে যান।

জঙ্গিদের মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় হামলার পরিকল্পনা ছিল বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী এ কথা জানান। এ ঘটনায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে পুলিশ বাদী হয়ে মোহাম্মদপুর থানায় মামলা করেছে। মামলার বাদী ডিএমপির কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের এক নম্বর টিমের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আজগর আলী।

মামলার এজাহার বলছে, পুলিশ জানতে পারে, নব্য জেএমবির কয়েকজন সদস্য নাশকতা সৃষ্টির উদ্দেশে মোহাম্মদপুর থানা এলাকায় জঙ্গি হামলা করতে পারেন। ওই এলাকায় গিয়ে ছদ্মবেশে পুলিশ অবস্থান নেয়। এরই মধ্যে খবর আসে, মোটরসাইকেলে করে জঙ্গিরা ওই এলাকা রেকি করতে বের হয়েছে। পুলিশ রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধের পাশে চেকপোস্ট বসায়।

এজাহারে আরো বলা হয়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত আনুমানিক পৌনে তিনটার দিকে কালো রঙের মোটরসাইকেলে করে চালকসহ তিনজন আরোহী চেকপোস্টের কাছে আসেন। থামতে বললে তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে হ্যান্ড গ্রেনেড ও গুলি ছোড়েন। পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। গোলাগুলির একপর্যায়ে মোটরসাইকেল আরোহী এক ‘জঙ্গি’ পালিয়ে যান। দুই ‘জঙ্গি’ মারজান ও সাদ্দাম নিহত হন।

ঘটনাস্থল থেকে একটি ৭.৬৫ মিলিমিটার বিদেশি পিস্তল, একটি চাকু, দুটি গুলিভর্তি একটি ম্যাগাজিন, বিস্ফোরিত দুটি গ্রেনেডের অংশ বিশেষ, রেজিস্ট্রেশন নম্বরবিহীন টিভিএস স্টার মোটরসাইকেল ও কালো রঙের হেলমেট উদ্ধারের কথা জানিয়েছে পুলিশ।

নতুন বার্তা/এইচএস


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top