শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮
webmail
Tue, 09 Jan, 2018 10:00:54 PM
নিজস্ব প্রতিবেদক
নতুন বার্তা ডটকম
ঢাকা: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসক রিয়াদ সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে এক রোগীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। রিয়াদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন ও চর্ম রোগ বিভাগের মেডিকেল অফিসার। গত সোমবার মেয়েটির বাবা বাদি হয়ে রিয়াদের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন। 
 
অভিযোগ করা হয়েছে, গত ৩১ ডিসেম্বর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসলে ওই তরুণীকে চিকিৎসক রিয়াদ একটি কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করেন। মঙ্গলবার ঢাকার আদালতে মেয়েটি জবানবন্দি দেয়।
 
শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান বলেন, মামলাটি গুরুত্বের সাথে নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তরুণীর বাড়ি ভোলা জেলায়। সে স্থানীয় একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী। 
 
ওসি বলেন, মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, গত ৩১ ডিসেম্বর তরুণী তার বাবা-মায়ের সাথে ঢাকায় আসে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য। ওইদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসক রিয়াদ সিদ্দিকের কাছে চিকিৎসার জন্য যায় সে। এসময় তার বাবা-মা হাসপাতাল চত্বরে অবস্থান করছিলেন। চিকিৎসক ওই তরুণীকে এক কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের দৃশ্য মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করে মেয়েটিকে হুমকি দেয় কাউকে না বলার জন্য। বিষয়টি ফাঁস করলে ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছেড়ে দিবে বলেও হুমকি দেয় চিকিৎসক। এ কারণেই কাউকে না বলে ওইদিনই মেয়েটি বাবা মাকে নিয়ে গ্রামের বাড়ি ভোলায় চলে যায়। ৫ জানুয়ারি এসে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি হয় সে।
 
জানতে চাইলে ডা. রিয়াদ সিদ্দিকী জানায়, এটা মিথ্যা কথা। মিথ্যাভাবে তাকে ফাঁসানো হচ্ছে। মেয়েটি মোবাইল ফোনে তার কাছে টাকা দাবি করেছিল। সে জানায়, তার বাড়ি মুন্সিগঞ্জে। তবে প্রতি শুক্রবার ভোলায় ব্যক্তিগতভাবে রোগী দেখতে যাওয়া হয়। মেয়েটিও তার রোগী। মেয়েটির পরিবার ভেবেছে তার কাছে মোটা অংকের টাকা আছে। এ জন্য কয়েকদিন আগে থেকেই ধর্ষণের মামলার হুমকি দিয়ে টাকা দাবি করে তারা। টাকা না দেওয়ায় মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছে বলে দাবি ওই চিকিৎসকের।
 
নতুনববার্তা/কিউএমএইচ
 

Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top
    close