বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮
Sat, 28 Apr, 2018 10:59:02 AM
পুলিশের সহযোগিতা না পাওয়ার অভিযোগ
নিজস্ব প্রতিবেদক
নতুন বার্তা ডটকম
ঢাকা: সম্প্রতি খিলগাঁওয়ে  ৪টি প্রতিষ্ঠানে লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। খিলগাঁও থানার অন্তর্গত মেরাদিয়া হাট সংলগ্ন বাগান বাড়ি এলাকায় এই ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত  ২টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত খিলগাঁওয়ের বাগানবাড়ির পাঁচটি বাড়িতে একযোগে ভাংচুর চালানো হয়। হ্যামার বা বড় হাতুরি দিয়ে ইটের দেয়াল ভেঙে মালামাল নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এ সময় ঘটনাস্থলের আশপাশে পুলিশ অবস্থান করলেও কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেছে প্রতিষ্ঠানের মালিকরা। এদিকে এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছে খিলগাঁও থানা পুলিশ।
 
যে ৪টি প্রতিষ্ঠানে হামলা ও লুটপাট করা হয়, সেগুলোর মধ্যে টিএনএস ইঞ্জিনিয়ারিং লিঃ বৈদ্যুতিক উপকেন্দ্র প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান , এসএম এন্টারপ্রাইজ তৈরী পোশাক, টার্বোটেক সার্ভিসেস লিমিটেড জেনারেটর সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান এবং লিরা ফ্যাশন তৈরী পোশাক কারখানা ।
 
 খিলগাঁও থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, ‘যে স্থানে কারখানা নির্মাণ করা হয়েছে ওই স্থানের জায়গা নিয়ে দুটি পক্ষের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে ওই বিরোধ থেকে ভাংচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় মামলা হচ্ছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
 
টিএনএস ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড’র মালিক প্রকৌশলী রেজাউল করিম বলেন, ‘গোডাউন ভেঙে সব মালামাল নিয়ে গেছে।’ কারখানার দেয়াল ভেঙে ভিতরে প্রবেশ করে দুর্বৃত্তরা। সবকিছু নিয়ে যায়। রেজাউল করিম আরও বলেন, ‘রাতে যখন ভাংচুর চালানো হচ্ছিল, তখন পুলিশের সহায়তা চেয়েও পাওয়া যায়নি।’
 
পোশাক কারখানার মালিক সোহেল রানা বলেন, ‘রাত পৌনে ২টার দিকে কারখানায় থাকা শ্রমিকরা আমাকে ঘটনাটি জানায়। আমি সাথে সাথে বাড়ির মালিককে বিষয়টি জানাই। বাড়ির মালিক আমাকে বলল, তিনি ঢাকার বাইরে আছেন, এসে ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।’
 
তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশকে জানাতে ৯৯৯ এ ফোন দিয়ে সহযোগিতা চাই। কিন্তু সহযোগিতা পাওয়া যায়নি। পুলিশ সহযোগিতা করলে এত বড় ক্ষতি হতো না বলে তিনি দাবি করেন।’
 
এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি মশিউর রহমান বলেন, তারা সরাসরি থানা পুলিশকে জানায়নি। জরুরি সেবা সেন্টার ৯৯৯ এ অভিযোগ করে। সেখান থেকে থানা পুলিশকে জানানোর আগেই ঘটনা ঘটে যায়। তিনি আরও বলেন, বর্তমানে ঘটনাস্থলটি পুলিশ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
 
বাড়ির মালিক শওকত হোসেন বলেন, ‘আমি ঘটনার সময় গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরে ছিলাম। আমাকে ভাড়াটিয়ারা ফোন করে জানায় যে,সব ভেঙে ফেলেছে।’
 
নতুনবার্তা/কিউএমএইচ
 
 

Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top