দৈনিক ভালো খবর

দেশেই বানানো হচ্ছে চিকিৎসক-নার্সদের সুরক্ষা পোশাক

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় দেশের চিকিৎসা সেবার সঙ্গে জড়িতদের জন্য নেই পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই্)। চিকিৎসকরাও পর্যাপ্ত পিপিই সরবরাহের দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

শনিবার (২১ মার্চ) রাতে নিজের ফেসবুকে স্বপ্না ভৌমিক জানান, বুয়েটের একদল অ্যালামনাই আর আমার দল মিলে তৈরি করছি পিপিই, সহযোগিতা করছে এফসিআই। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতি নিয়ে তারা এ পোশাক তৈরির উদ্যোগ নিয়েছেন। ইতোমধ্যে পোস্টটি ভাইরাল হয়ে গেছে।

ফেসবুকে শামস রশীদ জয় নামের একজন বিস্তারিত লিখতে গিয়ে বলছেন, ‘স্বপ্নার উদ্যোগে করোনা মোকাবিলায় ডাক্তার ও নার্স, রোগী, অন্যান্য জরুরি সেবার সদস্যদের জন্য চার লাখ পিপিই (পারসোনাল প্রোটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট) তৈরির কাজ শুরু করেছে মার্ক্স অ্যাণ্ড স্পেন্সার। সারা দিন চলেছে ফ্যাব্রিকের সন্ধান, বুয়েট অ্যালামনাই সদস্যদের সহায়তায় হয়েছে নকশা। সন্ধ্যাতেই পাওয়া গেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন। এগুলো বানানো হচ্ছে মার্ক্স অ্যাণ্ড স্পেন্সারের সঙ্গে নিয়মিত কাজ করা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিগুলোতে। ১০-১২ দিনের মধ্যেই চার লাখ তৈরি হয়ে যাবে বলে প্রত্যাশা মার্ক্স অ্যাণ্ড স্পেন্সারের।

পে ইট ফরওয়ার্ড নামের একটি গ্রুপে ও নিজের ফেসবুকে সোনার বাংলা ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি ডিরেক্টর মোহাম্মদ ওয়াহিদ হেসেন সারাদিনের ক্লান্তিকর এ প্রক্রিয়া নিয়ে পোস্ট দিয়েছেন।

তিনি লিখেছেন, ‘আগামীকাল থেকেই আমরা পিপিই প্রোডাকশনে যাচ্ছি।’ তিনি আরও লেখন, ‘এত্তো সাহস কোথায় পেলাম! বেশকিছু কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান, মাল্টিন্যাশনাল , এনজিও আর দেশ-বিদেশের অনেক ব্যক্তি- প্রতিষ্ঠান আমাদের সঙ্গে যুক্ত হতে চাইছেন। আর, চাইবেন নাইবা কেনো? এই ডাক্তার, এই নার্স, এই স্বাস্থ্যকর্মীরাতো আমাদেরই সন্তান; আমরা ওদের জন্য করবো নাতো কে করবে? আমরা ওদের সুরক্ষার ব্যবস্থা না করলে, ওরা কী করে আমাদের সেবা দেবে?’ পোস্ট দুটি ফেসবুকে দেওয়ার পর সুশীল সমাজ, অ্যাক্টিভিস্ট, আর্টিস্ট, সাধারণ নাগরিকরা এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker