বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮
Sat, 28 Apr, 2018 07:34:09 AM
কোটা আন্দোলন
ঢাবি প্রতিনিধি
নতুন বার্তা ডটকম

ঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদেশ সফর শেষে দেশে ফেরার পরই কোটা সংস্কারের বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে; জাহাঙ্গীর কবির নানক।

সরকারি চাকরিতে বিদ্যমান কোটা সংষ্কারের দাবিতে গত ৮ই এপ্রিল থেকে ব্যপক আকারে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন শুরু হয়। রাজধানীর শাহবাগ, চারুকলা ও টিএসসি এলাকায় ওই দিন রাতে শিক্ষার্থীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। মধ্যরাতে ভাংচুর চালানো হয় উপাচার্যের বাসভবনে। পরে ১১ই এপ্রিল জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী কোটা বাতিলের ঘোষণা দিলে বন্ধ হয় আন্দোলন।

শিক্ষার্থীরা কোটা সংষ্কারের জন্য আন্দোলন করলেও এখন কোটা বাতিলের প্রজ্ঞাপনই চায় তারা। শুক্রবার রাতে রাজধানীর মানিক মিয়া এভিনিউয়ের ন্যাম ভবনে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানকের ফ্ল্যাটে আন্দোলনকারীদের ১৪ সদস্যের এক প্রতিনিধিদলের সঙ্গে এক বৈঠক হয়। গত ২৬শে এপ্রিল এক সংবাদ সম্মেলনে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে আবারও আন্দোলনের আলটিমেটাম দেয়ার পর দিনই তাদের আলোচনার জন্য ডাকা হলো। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা ধরে চলা এই বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম, আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন, যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নূর, রাশেদ খান, ফারুক হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা শেষে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নূরুল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর সরকারি চাকরির কোটা নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে আশ্বাস পাওয়া গেছে। তাই দাবি আদায়ে ছোটখাটো কর্মসূচি চললেও আগামী ৭ই মে পর্যন্ত কোনো বড় কর্মসূচি দেয়া হবে না।

নূরুল হক আরও বলেন, এই আলোচনার পর তাঁদের আতঙ্ক অনেকটাই কেটে গেছে। আন্দোলনকারীদের বিনা কারণে হয়রানি করা হবে না—এমন আশ্বাসও পেয়েছেন তাঁরা।

জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ছাত্রদের সঙ্গে প্রাণখোলা আলোচনা হয়েছে। তাঁদের বলা হয়েছে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফেরার পর কোটা নিয়ে প্রজ্ঞাপন জারির বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোটা নিয়ে আন্দোলনকারী একজন ছাত্রও বিনা কারণে যেন হয়রানির শিকার না হন, সেটা নিশ্চিত করা হবে।

কোটা সংষ্কারের আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া কাউকে হয়রানি করা হবে না বলে আস্বস্ত করেছেন নানক। তবে উপাচার্যের বাসভবনে ভাংচুরের ঘটনায় দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন দুই পক্ষই।

নতুন বার্তা/কেকে


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top