শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭
webmail
Sun, 13 Aug, 2017 12:33:29 PM
নতুন বার্তা ডেস্ক
ঢাকা:অমিতাভ বচ্চন, মারিয়া শারাপভা জুলিয়া রবার্টস, অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, বারাক ওবামা, জর্জ বুশ, পেলে, ম্যারাডোনা কিংবা বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুস্তাফিজুর রহমান নামগুলো কম-বেশি সবারই জানা বা প্রিয়।
নামজাদা এই মানুষগুলোর সবার একটি ব্যাপারে রয়েছে দারুণ মিল। এঁরা সবাই বাঁ-হাতি।সাধারণভাবে ডানহাতে কাজ করাটাই প্রচলিত, তাই একজন বাঁহাতি মানুষকে সমাজে সহজে মেনে নিতে চায় না।
এই চিন্তা থেকেই ইউরোপে কয়েক দশক আগে থেকে শুরু হযেছে বাঁ’হাতি দিবস উদযাপন।
 
বাংলাদেশের সমাজে বাঁ হাতিরা কতটা সাদরে গৃহীত হন? এমন এক প্রশ্নের জবাবে সম্প্রতি ঢাকার বাসিন্দা নুসরাত জাহান ‘বিবিসি বাংলা’র শায়লা রুখসানাকে বলছিলেন, বাঁহাতি হবার জন্য তাঁকে নানা ধরণের বিড়ম্বনায় পড়তে হয়েছে।তিনি বলেন,“যখন হাত দিয়ে খেতে শুরু করি তখন প্রথম বিষয়টাতে গুরুত্ব দেয়া হয়েছিলো। আমি দুহাতে খেতাম। আমাকে ডানহাতে খাওয়ার জন্য চাপ দেয়া হতো। লেখা শুরু করার পরও ডানহাতে লেখার জন্য চাপ দেয়া হতো। ছোটবেলায় এমনকি একটা সময়ে আমার বাঁ হাত কিছুদিন বেঁধেও রাখা হয়েছিলো।”
মানুষ কেন বাঁহাতি হয় - সেটি এখনো পরিষ্কার নয়। তবে বিশ্বের দশ শতাংশ মানুষ বাঁহাতি।
 
বিভিন্ন সংস্কৃতিতে তাদের নিয়ে রয়েছে নানা ধরনের সংস্কার।বাঁহাতিদের এমনকি জোর করে ডানহাতি বানানোর চেষ্টাও আছে।তবে এটি উত্তরাধিকার সূত্রেও হয়ে থাকে যেমন নুসরাত জাহানের মেয়েও বাঁহাতি।নুসরাত জাহান সেলাইও করেন বাঁ হাতে। বলছিলেন বাঁহাতি হওয়ার কারণে তাঁকে বিয়ের পর ব্যাপক হেনস্তার শিকার হয়েছে।
 
তিনি বলেন, “বাংলাদেশে অনেকে বাঁহাতিদের বেয়াদব মনে করে।” –বিবিসি
 
নতুনবার্তা/কিউএমএইচ
 

Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top