বিনোদনহোমপেজ স্লাইড ছবি

চেরনোবিল মিনি সিরিজ: নির্মম সত্যের প্রতিচ্ছবি

ওমর ফারুক: চেরনোবিল মিনি সিরিজটিতে মাত্র ৩৩ বছর আগে ঘটে যাওয়া পৃথিবীর এখন পর্যন্ত সবচেয়ে মারাত্নক পারমানবিক দূর্ঘটনার কারণ ও ফলাফল দেখানো হয়েছে। পৃথিবীর ইতিহাসে যতগুলো সবচেয়ে খারাপ প্রকৃতির মানবসৃষ্ট দূর্যোগ রয়েছে তার মধ্যে এটি অন্যতম যা চেরনোবিলকে শুধুমাত্র একটি পরিত্যক্ত শহরেই পরিণত করেনি বরং অসংখ্য মানুষের জীবন সম্পূর্ণরুপে বদলে দিয়েছে।

মনে করা হয়, চেরনোবিল দূর্ঘটনাটিই সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ার মূল কারন। সিরিজটি শুরু হয় চেরনোবিল দুর্ঘটনার ২ বছর পর প্রফেসর লিগাসভ এর আত্মহত্যা দেখানোর মাধ্যমে। ২৬ এপ্রিল, ১৯৮৬ সালে প্রিপিয়াট এর মানুষ যখন নিশ্চিন্তে ঘুমে মগ্ন তখন রাত ১টা ২৩ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডে চেরনোবিল নিউক্লিয়ার পাওয়ারপ্লান্টে বিস্ফোরন ঘটে। এই বিস্ফোরণটাকে নিছক একটি ফুয়েল ট্যাংকের বিস্ফোরণ মনে করা হয় কারন পাওয়ারপ্লান্টে ব্যবহৃত নিউক্লিয়ার রিয়্যাকটরটি ছিলো আরবিএমকে নিউক্লিয়ার রিয়্যাকটর এবং আরবিএমকে নিউক্লিয়ার রিয়্যাকটর কখনোই বিস্ফোরিত হওয়া সম্ভব নয়।

পাওয়ারপ্লান্টের আগুন নেভাতে ফায়ার ফাইটাররা আসে। একজন ফায়ার ফাইটার উজ্জল একটি ধাতব বস্তু দেখে হাতে নেয় এবং কিছু সময় পর তার হাতের কোষাবরণ নষ্ট হয়ে যায় এবং তারপর সে মৃত্যুবরণ করে। এই রিপোর্টের ভিত্তিতে নিউক্লিয়ার রিয়্যাকটরটি যে বিস্ফোরিত হয়েছে তা লিগাসভ সন্দেহ করে এবং পরবর্তীতে তা প্রমানিত হয়। এর ফলে সৃষ্ট তেজস্ক্রিয়তার যে মারাত্মক ফলাফল তা রোধ করতে প্রফেসর লিগাসভ এর প্রচেষ্টা শুরু হয়। এর পাশাপাশি শুরু হয়, আরবিএমকে রিয়্যাকটর যা বিস্ফোরণ অসম্ভব তা কিভাবে বিস্ফোরিত হলো তার অনুসন্ধান।

এই সিরিজটিতে তেজস্ক্রিয়তার মত অদৃশ্য জিনিস কিভাবে মানুষকে একটি ভয়াবহ মৃত্যু দিতে পারে তা খুব ভালোভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। বিজ্ঞানকে অদক্ষ ও বেপরোয়াভাবে ব্যবহার করলে তার ফলাফল কতটা ভয়াবহ হতে পারে এই সিরিজটি তার সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারনা দেয়। মানবচরিত্রের বেশ কিছু অনুভুতিগত ব্যাপারও সিরিজটিতে দেখানো হয়েছে।

প্রিয়মানুষটি চোখের সামনে অত্যন্ত কষ্টকর মৃত্যুবরণ করছে এবং সেটা দেখেও কিছুই না করতে পারা উপরন্তু তখন তার শেষ সময়ে তার কাছে থাকার জন্যও নিজের অনাগত সন্তানকে হারানো বা জন্ম থেকে ৮০ বছরের অধিক সময় ধরে একটা জায়গায় বসবাস করার পর হঠাৎ সেখান থেকে অদৃশ্য কোন কারনে চলে যেতে বাধ্য হওয়া কিংবা শুধুমাত্র নিজেদের ভবিষ্যৎ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য নিরীহ পোষা এবং বন্য প্রাণী হত্যা করার মত বিষয়গুলি দৃশ্যায়ন করা হয়েছে এই সিরিজটিতে। এই একটিমাত্র সিরিজে আত্মত্যাগ, লোভ, মিথ্যা এবং অসততার চরম মূল্যদান, নৈতিক দায়বদ্ধতা এবং এছাড়াও আরও কিছু বাস্তবিক নির্মম সত্য অত্যন্ত সুন্দরভাবে তুলে ধরা হয়েছে।

সবমিলিয়ে আমার কাছে বেশ ভালো লেগেছে। চাইলে দেখতে পারেন। তবে সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং আমেরিকা পরস্পরবিরোধী হওয়ায় এবং সিরিজটি আমেরিকায় তৈরী হওয়ায় কিছুটা পক্ষপাতদুষ্ট হওয়ার প্রশ্ন থেকেই যায়। কিন্তু সিরিজটায় সোভিয়েত ইউনিয়নের দোষ অতিরঞ্জিত করে দেখানো হয়েছে সেটা আমার কখনোই মনে হয়নি।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker