ট্রেন্ডিং খবরবিনোদনহোমপেজ স্লাইড ছবি

একজন মানুষের বদলে যাওয়ার দৃশ্যকাব্য ‘জোকার’

জোনায়েদ তানজীম:  Joker এমনই একটা মুভি যেটা দেখে চুপ করে বসে থেকে ভুলে যাবার মত নয়। কি দেখলাম, কি অনুভব করলাম এসব ভেতর থেকে উগরে দিতে না পারলে যেন শান্তি পাওয়া যাচ্ছে না।

প্রথমেই বলতে হবে কারা জোকার দেখে পছন্দ করবেন না। যারা মুভি মানেই একশন আশা করেন, যারা মুভিতে গল্প শুনতে পছন্দ করেন না।

এই মুভি একটা গল্প শোনাবে আপনাকে। আমাদেরই মত একটা অতি সাধারণ ছা-পোষা মানুষের গল্প। ক্লাউন সেজে রাস্তায় কমেডি করে উপার্জন করা মানুষ কিভাবে ভয়ংকর একজন মানুষ “জোকার”-এ পরিণত হল সে গল্পই বলবে এই মুভিতে৷ সমাজে প্রতিনিয়ত অবহেলিত, নির্যাতিত মানুষটির বদলে যাওয়ার গল্প। হতাশা আর ব্যর্থতার গ্রাস করা মানুষটির বদলে যাওয়ার গল্প। এ গল্প যেন সবার! প্রত্যেকের ভেতরে যেন একটি জোকার রয়েছে! Fight Club মুভিটি রিলিজের পর পর পুরো বিশ্বে আনাচে কানাচে অসংখ্য ফাইট ক্লাব গড়ে উঠেছিল, এই Joker মুভির পরেও ঠিক তেমন রিয়েল লাইফ প্রতিবাদী, বিপ্লবী ধারার কারো উত্থান হওয়াটা অস্বাভাবিক হবে না।

যখন ঘোষণা করা হয়েছিল Joaquin Phoenix জোকার রোল প্লে করবে তখন অনেকেই ভেবেছিলো, আসলেই কি সে পারবে! হিথ লেজারের যে স্মৃতি আমরা নিয়ে বেড়াচ্ছি সেটার প্রতি বিরক্তি জন্মানো কিছু আসবে না তো! অবশেষে ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবে জোকারের প্রিমিয়ারের পর ৮ মিনিট টানা দর্শকদের দাঁড়িয়ে হাত তালি দেয়ার সংবাদ জোকার প্রেমীদের মনে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। একটু একটু আঁচ করা যাচ্ছিল এক মাস্টারপিস অপেক্ষা করছে হলগুলো কাঁপাতে।

ফিনিক্স তার সেরাটাই দিয়েছে বললেও যেন কম মনে হয়। ঠিক মনে হচ্ছিল এ যেন জোকারই! কেউ অভিনয় করছে না, এটা ফিনিক্স নয়। হলে ঢুকছিলাম হিথ লেজারের এক্টিং মিস করব কিনা এই ভয়ে। কিন্তু না! একেবারেই স্বতঃস্ফূর্ত ভিন্ন এক জোকারকে দেখলাম। দু’জনই দু’জনের অবস্থানে সেরা। ঠিক দু’টো মানুষের এক সত্তা। সাধারণত মুভির প্লে টাইমের ৭০% এর বেশি প্লে টাইম কোনো ক্যারেক্টার প্লে করলে ব্যাপারটা দৃষ্টিকটু লাগে। জোকার মুভিতে ফিনিক্স সম্ভবত ৯৫% এর বেশি প্লে টাইম নিয়েছে। পুরো গল্পটা একাই টেনে চলেছে কেবল পরিপার্শ্ব পরিবর্তন করে করে। কিন্তু একটা মুহূর্তের জন্যও বিরক্তি দূরে থাক, চোখেও লাগে নি। এই অভিনয়ের জন্য Academy Award প্রাপ্য হয়ে গেল ফিনিক্সের।

বরং না পেলেই অবিচার হবে বোধহয়। সিনেমাটোগ্রাফি ছিল ঠিক মাস্টারপিস লেভেলেরই। প্রত্যেকটা ফ্রেম এত চমৎকার! ঠিক যে ধরনের ইমোশন ক্রিয়েট করার জন্য যেমনটা শট প্রয়োজন ঠিক তেমনটাই করা হয়েছে। এই শটগুলোকে প্রাণ দিয়েছে অসাধারণ ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকগুলো। এই স্কোরিং অনেক অনেক শটে কোনো ডায়লগ ছাড়াই অনায়াসে বলে দিয়েছে অনেক কথা। সবশেষে বলতে হয় টড ফিলিপসের কথা। জোকারের জোকার হবার গল্প, তার এই বিচিত্র হাসির গল্প, পালটে যাবার গল্প বলাতে তিনি যে মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন তা খুবই অসাধারণ। হ্যাটস অফ!

এই সিনেমার যত রিভিউই লেখা হোক, যত আলোচনাই হোক না কেন যে চাক্ষুষ এই সিনেমা দেখবে না সে বুঝতেই পারবে না এর গভীরতা কত বিশাল! হাইলি রিকমেন্ডেড একটি মুভি এটি। সময় এবং অর্থ দু’টোরই যোগ্য।

IMDB Rating : 9.1
Personal Rating : 9.5

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker