বিনোদনহোমপেজ স্লাইড ছবি

স্পটলাইট: সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত যে চলচ্চিত্র

ইসমাইল আহমেদ রুপন: সাল ১৯৭৬। আমেরিকার বোস্টন পুলিশ স্টেশন। দু’জন পুলিশ কথা বলছেন একটি গ্রেপ্তারের ব্যাপারে। বেশ স্পর্শকাতর মামলা, কারণ একটি শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। নির্যাতন করেছেন ক্যাথলিক চার্চের এক ধর্মযাজক। উচ্চপদস্থ আরেক পাদ্রির সামনে শিশুটির মাকে বুঝানোর চেষ্টা চলছে। এক পর্যায়ে, সহকারী জেলা অ্যাটর্নি স্টেশনে প্রবেশ করলেন। ঘটনাটি যেহেতু স্পর্শকাতর, সেহেতু মামলা ধামাচাপা দিতে বললেন। অতঃপর, একটি নিস্পাপ শিশুকে যৌন নির্যাতন করা সেই অমানুষকে ছেড়ে দেয়া হলো। জাস্টিজ ওয়াজ ডিনাইড দ্যাট ডে।

সাল ২০০১। দ্যা বোস্টন গ্লোব পত্রিকায় নতুন সম্পাদক নিয়োগ করা হলো। সে পত্রিকায় প্রকাশিত কিছু প্রতিবেদন পড়ে ধর্মযাজকদের শিশু যৌন নির্যাতন সম্পর্কে জানতে পারলেন তিনি। ফলে, উক্ত পত্রিকার স্পটলাইট নামক অনুসন্ধান টিমকে দায়িত্ব দিলেন সত্য বের করে আনার। তদন্তে ফাঁস হলো ভয়ংকর সব চাঞ্চল্যকর তথ্য। একজনের বিরুদ্ধেই ৮০টি অভিযোগের তদন্ত করতে গিয়ে বেরিয়ে আসে ১৩ জন ধর্মযাজকের বিরুদ্ধে কয়েকশ’ অভিযোগের কথা। বোস্টনের ক্যাথলিক চার্চ ব্যবস্থার প্রতিটি প্রকোষ্ঠে শিশুদের উপর যৌন নিপীড়নের ভয়াবহ চিত্র পরিলক্ষিত হয়। নানা বাধা বিপত্তি পেরিয়ে এ ধরণের প্রায় ৬০০টি ঘটনার প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর, বোস্টনের ক্যাথলিক চার্চের প্রধান পদত্যাগ করেন এবং অসংখ্য শিশু রক্ষা পায় শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতনের হাত থেকে। যা তোলপাড় করেছিলো পুরো বিশ্বকে।

সাংবাদিকতায় বিশেষ এই অবদানের জন্য বিখ্যাত পুলিৎজার সম্মাননায় ভূষিত হয়েছিলো স্পটলাইট টিম। এবং এই সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত ‘স্পটলাইট’, চলচ্চিত্রটি ২০১৬ সালের অস্কারে সেরা চলচ্চিত্র হিসেবে ভূষিত হয়। ৬টি নমিনেশন পেয়ে সেরা চিত্রনাট্য এবং চলচ্চিত্রের দুইটি ক্যাটাগরিতে জয় করে স্পটলাইট। গোল্ডেন গ্লোবেও সেরা চিত্রনাট্যের পুরস্কার জিতে নেয়। টম ম্যাকার্থির রচনা ও পরিচালনায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে যৌন নির্যাতনের মতো স্পর্শকাতর বিষয়বস্তু নিয়ে নির্মিত চলচ্চিত্র স্পটলাইটের অস্কার-সেরা হওয়াটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার ছিলো। এ ধরণের চলচ্চিত্রকে সাধারণত বাতিলের তালিকায় ফেলে দেয়া হয় বিষয়বস্তুর কারণে।

স্পটলাইট টিম হিসেবে পারফর্ম করা প্রতিটি আর্টিস্ট দারুণ অভিনয় দক্ষতা দেখিয়েছেন এই সিনেমাটিতে। বিশেষ করে হাল্কখ্যাত মার্ক রাফেলোর পারর্ফমেন্স ছিলো দুর্দান্ত। অস্কারে পার্শ্ব চরিত্রে নমিনেশনও পেয়েছিলেন তিনি। স্ক্রিন গিল্ড এওয়ার্ডসে পুরো ফিল্ম কাস্টটেই পুরস্কৃত করা হয়। মাইকেল কিটন, রেইচেল ম্যাকাডমস, লিভ শ্রেইবারসহ সবাই খুবই ভালো অভিনয় করেছেন। ৮.১ রেটিং নিয়ে আইএমডিবির সেরা ২৫০ সিনেমার তালিকায় ২২৪ নাম্বারে অবস্থান করছে সিনেমাটি। রটেন টমাটোজে ফ্রেশনেস ৯৭%, মেটাক্রিটিকে স্কোর ৯৩%। ২০ মিলিয়ন ইউএস ডলার বাজেটের এই সিনেমার বক্সফিসে আয় ছিলো ৯৮ মিলিয়ন। সাল ২০২০।

 

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker