শুক্রবার, ২৮ জুলাই ২০১৭
webmail
বার্লিনঃবাভেরিয়ার জঙ্গলে বনবিড়ালের খোঁজে বিজ্ঞানীরা কী-ই বা না করছেন! বনবিড়ালদের জিপিএস কলার পরানো থেকে শুরু করে বিমান থেকে গোটা জঙ্গল স্ক্যান করা, সব ধরনের হাই-টেক ব্যবহার করা হচ্ছে৷   ঘন জঙ্গল আর নির্জন উপত্যকা৷ বাভেরিয়ার অরণ্য জার্মানিতে মুক্ত, বন্য প্রকৃতির শেষ আশ্রয়গুলির মধ্যে অন্যতম৷ মাত্র এক হাজার বছর আগে এখানে মানুষের বসবাস
ঢাকা: রোববার থেকে সারাদেশে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণের খবরও পাওয়া যাচ্ছে।ভারী বর্ষণে নাকাল ঢাকা, চট্টগ্রাম ও পার্বত্য এলাকাসহ পুরো দেশ।   এ বৃষ্টির ধারা মঙ্গলবারও অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর।   জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় একটি লঘুচাপ সৃষ্টি হয়েছে। মৌসুমী বায়ুর অক্ষ রাজস্থান, উত্তর প্রদেশ, বিহার,
মিরসরাই: মকাসাবা চাষ করে ভাগ্যের পরিবর্তন হয়ে গেছে মিরসরাইয়ের সঞ্জিত সাহা, মুক্তার সহ অনেক কৃষকের। আগে পাহাড়ে আধা, হলুদ সহ নানা ধরণের সবজি চাষ করলেও তাতে বিক্রির আয়ের চেয়ে উৎপাদনে ব্যয় বেশী হতো। তাছাড়া সব সময় ভালো দামও পাওয়া যেতো না। রোগ প্রতিরোধে কীটনাশকে খরচ হতো বেশী। তাই এখন অল্প
লন্ডন: লিঙ্গ বদলে ফেলার জন্য মানুষকে কত চেষ্টা চরিত্রই না করতে হয়। কিন্তু অন্য প্রাণীদের ক্ষেত্রে লিঙ্গ পরিবর্তন, বিশেষ করে মাছেদের বেলায় সেটা কেমন?   আগে এমন কথা শোনা না গেলেও, এখন জানা যাচ্ছে ব্রিটেনে মিষ্টি পানির পুরুষ মাছেদের অন্তত কুড়ি শতাংশের লিঙ্গ আপনা থেকেই বদলে যাচ্ছে।   তারা ক্রমশ নারী লিঙ্গের মাছের মতো
ওয়াশিংটন: এশিয়া মহাদেশেই রয়েছে মারণ রোগ ক্যান্সার সহ এইচআইভি’র প্রতিষেধক। সাম্প্রতিক কালের একটি গবেষণায় উঠে এসেছে এই তথ্য। বিজ্ঞানীদের মতে, এশিয়া মহাদেশে এমন একটি গাছের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে যা এজিটি ড্রাগের থেকেও বেশি শক্তিশালী। এইচআইভির আক্রমণ প্রতিহত করতে এজিটি ড্রাগ ব্যবহার করা হতো। গুল্ম জাতীয় এক প্রকারের উদ্ভিদ জন্মায় পূর্ব এশিয়ায়।
ঢাকা: দেশে সোমবারও আকাশ কালো করে বৃষ্টি শুরু হয় সকাল থেকে। ঘন্টা দুয়েকের ভারী বর্ষণে রাস্তায় পানি জমে যায় ঢাকার অনেক এলাকায়। আবহাওয়া অফিস বলছে আগামী দুদিন আরো বৃষ্টি হবে এবং কিছু এলাকায় ভূমিধ্বসেরও আশঙ্কা রয়েছে। দেশে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার জুন মাসে বৃষ্টির পরিমাণ বেশি হয়েছে, এমনটাই তারা বলছে। এর আগে
ওয়াশিংটন: অ্যাঁ? একি রূপকথার গপ্পো, না ঈশপের কাহিনি যে, পাখি সাঁতার কাটবে? কিন্তু দিন তিনেক আগে মার্কিন মুলুকে ঠিক তা-ই ঘটেছে৷ প্রথম তিন দিনেই তার ভিডিও দেখেছেন আড়াই লাখ মানুষ...!! অ্যারিজোনা আর উটার মাঝে লেক পাওয়েল, অর্থাৎ পাওয়েল হ্রদ এলাকায় হাইকিং করছিলেন একদল হাইকার৷ পায়ে হেঁটে যাচ্ছিলেন একটি ক্যানিয়ন বা খাড়ি
ঢাকা: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক বলেছেন, ১০৮ প্রজাতির দেশীয় মিঠা পানির মাছের অস্তিত্ব সংকটের মধ্যে রয়েছে। তিনি বলেন, এর মধ্যে ২৮টি প্রজাতি বিলুপ্তির পথে, ৫৪টি প্রজাতির মাছের অস্তিত্ব হুমকির মধ্যে, ১২টি প্রজাতির মাছ মহাসংকটে এবং ১৪টি প্রজাতির মাছ ঝুঁকির মুখে রয়েছে। তিনি সরকারি দলের বেগম পিনু খানের এক প্রশ্নের
ঢাকা: আমা পছন্দ করেন না কে? এখন জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ চলছে। মধু মাস জৈষ্ঠও যাই যাই করছে। বাংলাদেশের জাতীয় ফল কাঁঠাল হলেও বর্তমানে মানুষের নিত্য দিনের পছন্দ, উৎপাদন ও বাণিজ্যের তালিকায় সম্ভবত আম-ই রয়েছে প্রথমে।   এই আমের মৌসুম আসলে মোট পাঁচ মাস। এর মধ্যে জুন থেকে আগস্ট মাসের প্রথম সপ্তাহ
ঢাকা: ওকাভাঙ্গো ডেল্টা বা বদ্বীপকে গণ্ডারদের স্বর্গ বলা যেতে পারে তা কালো গন্ডরই হোক আর সাদা গন্ডারই হোক৷ প্রয়োজনে ওদের প্লেনে করে ওকাভাঙ্গোয় নিয়ে আসা হয়, কারণ সেটাই তাদের শেষ আশ্রয়৷   উত্তর বটসোয়ানার ওকাভাঙ্গো ডেল্টা বা ওকাভাঙ্গো নদীর বদ্বীপকে বন্যপ্রাণীর প্রাচুর্যের দিক থেকে একটি অনন্য পরিবেশ বলে গণ্য করা হয়৷ এ্যাঙ্গোলার
ঢাকা: রাশিয়া ও আলাস্কা উপকূলে উপকূলে শুক্রবার ৬ দশমিক ৮ মাত্রার একটি ভূমিকম্প অনুভুত হয়েছে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ জানায়, ভূকম্পনটির উৎপত্তিস্থল ছিল রাশিয়া ও আলাস্কা উপকূলের মাঝাখানের একটি আগ্নেয় দ্বীপের কাছে।    বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, গ্রিনিচ মান সময় ২২ টা ২৪ মিনিটে ভূকম্পনটি রেকর্ড করা হয়।   ভূকম্পনবিদরা জানান, ভূমিকম্পনটির কেন্দ্রস্থল ছিল আলাস্কার
ঢাকা: ডাইনোসরের পর  কি তবে এবার মানুষের পালা? ‘মাস এক্সটিঙ্কশন’ বা গণবিলুপ্তির পথে এগুচ্ছে গোটা মানবসভ্যতা। আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান জার্নাল ‘নেচার’ এ প্রকাশিত এক গবেষণাপত্রে এমনই আশংকার আভাস দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলেছেন, ষষ্ঠতম এই বিলুপ্তির নাম হবে ‘অ্যানথ্রোপোজেনিক বা হ্যালোসিন এক্সটিঙ্কশন’। যাতে শেষ হয়ে যাবে মানবসভ্যতা। আর এই প্রথম তার জন্য
এমনও গাছ রয়েছে যা মাটিতে মিশে থাকা ভারি ধাতু শুষে নিতে পারে৷ এর ফলে ফিরে আসে মাটির শুদ্ধতা৷ এমন গাছও রয়েছে যার মাধ্যমে গতানুগতিক কোনো যন্ত্রপাতি ছাড়াই খনিজ পদার্থ আহরণ করা যায়৷ জার্মানির ফ্রাইবুর্গ টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির গবেষকরা এক ধরনের খাগড়া ঘাসের মাধ্যমে মাটি থেকে জারমেনিয়াম নামে একটা খনিজ পদার্থ উত্তোলন করেছেন৷ পৃথিবীতে
ঢাকা: পরিযায়ী পাখিরা হাজার হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে এক মহাদেশ থেকে অন্য মহাদেশে পৌঁছে যায়৷ কিন্তু জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তাদের যাত্রাপথ বদলে যাচ্ছে৷ বিজ্ঞানীরা এক অভিনব উপায়ে তাদের গতিবিধির উপর নজর রাখছেন৷   প্রতি বছর আগস্ট মাসে সারস পাখিদের যাত্রা শুরু হয়৷ ইউরোপে তাদের চারণক্ষেত্র থেকে আফ্রিকায় শীতকালীন আশ্রয়স্থল পর্যন্ত প্রায়
জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে অবিশ্বাস্য বেশ কিছু ঘটনা ঘটবে৷ বিমান চলাচল দুরুহ হবে, আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাত বাড়বে, বাড়বে বজ্রপাত৷ চলুন জেনে নিই ছয়টি ঘটনা যা বিশ্বের উষ্ণতা বৃদ্ধির কারণে ঘটবে৷ বিমানযাত্রা কঠিন হবে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিমানে ঝাঁকুনি বেড়ে যাবে, ফলে বিমানযাত্রায় শারীরিক ও মানসিক চাপ আরো বাড়বে৷ বিশেষ করে যাত্রীবাহী বিমানগুলো যে পথে
পানামা: পানামার ম্যানগ্রোভ অরণ্যগুলোর বিপদ ঘনিয়েছে পরিবেশের দরুণ নয়৷ এখানকার মানুষজন গরু পোষেন আর গরুর চামড়া ‘ডাই' বা রং করার প্রিয় উপাদান হলো ম্যানগ্রোভ গাছের ছাল৷ তাও ধারাবদলের চেষ্টা চলেছে৷ পানামার দক্ষিণ উপকূলে চিরিকি প্রদেশ৷ সেখানকার ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট বা শ্বাসমূল অরণ্য গ্রামগুলিকে সাগরের বান থেকে রক্ষা করে; ম্যানগ্রোভ শিকড়ের ফাঁকে-ফোকরে বহু
ঢাকা: মাত্র তিন থেকে পাঁচ ইঞ্চি লম্বা এই পাখিগুলির চেহারা, খাবার-দাবার, আচার-আচরণ, সবই অসাধারণ৷ ফুলের মধু খায় মৌমাছিদের মতো; পিছন দিকে উড়তে পারে পোকামাকড়ের মতো; আবার হাজার হাজার মাইল পরিভ্রমণ করে... বিশ্বের সবচেয়ে ছোট পাখি ট্রকিলিডে পরিবারের ক্ষুদ্রতম সদস্য এই ‘বি হামিংবার্ড’ বা মৌমাছি হামিংবার্ড, ঠোঁট সুদ্ধু মাত্র দুই ইঞ্চি লম্বা, ওজনে
ঢাকা: হুম, খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এখন৷ অন্তত খাওয়ার পানি বয়ে নেয়ার জন্য প্লাস্টিক বোতল ব্যবহারের প্রয়োজন বোধহয় খুব বেশ দিন আর থাকবে না৷ বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছে এক ভিন্ন পন্থা, যা দেখতে ‘স্মার্ট’ আর পান করতেও মজা৷ বলছি, খাওয়ার যোগ্য ছোট ছোট পানির বলের কথা৷ দেখতে অনেকটা পিংপং বলের মতো এসব পানিবাহী
ঢাকা: চওড়া করা হবে যশোর রোড৷ সেই কারণে কেটে ফেলতে হবে রাস্তার দুই ধারের প্রায় চার হাজার গাছ, যাদের বয়স গড়ে ৩০০ বছর৷ শুরু হয়েছে সেই গাছ বাঁচানোর লড়াই৷ রাহুল দে বিশ্বাস৷ একজন সমাজকর্মী৷ ১৫ এপ্রিল, বাংলা বছরের প্রথম দিন, বনগাঁ থেকে হাবড়া – যশোর রোড ধরে ৩০ কিলোমিটার রাস্তা হাঁটলেন
ঢাকা: ষাটের দশকের বেশ জনপ্রিয় একটা গানের শুরুটা এমন – ‘নেবনা সোনার চাঁপা কনকচাঁপা পেলে।’ কনকচাঁপা যারা চেনেন তাদের কাছে বেপারটা তেমনই। এমনই এর রূপ-মাধুর্য্। বলা হচ্ছে ‘কনকচাঁপা’ ফুলের কথা। ‘কনকচাঁপা’ অচনাসিয়াই(Ochnaceae)পরিবারে ছোট বৃক্ষ জাতীয় গাছ। বোটানিক্যাল নাম ‘অচনা অবতুসাতা’(Ochna obtusata), ‘অচনা ইন্টিগেরিমা’(Ochna Integerrima)নামেও পরিচিত। বাংলাদেশে এ গাছটি প্রায় দুর্লভ। ঢাকাতে
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ
আজকের আবহাওয়া
সারাদেশের তাপমাত্রা


শিরোনাম
Top