সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
webmail
Mon, 17 Apr, 2017 08:20:39 PM
নতুন বার্তা ডেস্ক

ঢাকা: চওড়া করা হবে যশোর রোড৷ সেই কারণে কেটে ফেলতে হবে রাস্তার দুই ধারের প্রায় চার হাজার গাছ, যাদের বয়স গড়ে ৩০০ বছর৷ শুরু হয়েছে সেই গাছ বাঁচানোর লড়াই৷

রাহুল দে বিশ্বাস৷ একজন সমাজকর্মী৷ ১৫ এপ্রিল, বাংলা বছরের প্রথম দিন, বনগাঁ থেকে হাবড়া – যশোর রোড ধরে ৩০ কিলোমিটার রাস্তা হাঁটলেন রাহুল৷ ‘যশোর রোড গাছ বাঁচাও কমিটি’-র একজন প্রচারক হিসেবে৷ কারণ ভয়ংকর এক পরিবেশবিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার, জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ৷ রাস্তা চওড়া করতে, রাস্তার দুই ধারের হাজার হাজার গাছ কেটে ফেলার৷

বৃটিশ আমলে তৈরি, কলকাতার সঙ্গে বাংলাদেশের যশোরের সংযোগরক্ষাকারী যশোর রোড চওড়া করা হবে, ফ্লাইওভার, ওভারব্রিজ তৈরি হবে, আর সেই উন্নয়ণযজ্ঞে আহুতি দেয়া হবে প্রায় ৪০০০ গাছ৷ সুপ্রাচীন বৃক্ষ সব, যাদের গড় বয়স ৩০০ বছর৷ কাজেই রাহুল এবং তার মতো অনেকেই পথে নেমেছেন প্রতিবাদ জানাতে৷ রাহুল ডয়চে ভেলেকে জানালেন, অনলাইনে এবং কাগজে-কলমে, দুইভাবেই সই সংগ্রহ করছেন ওরা৷

সেই দরখাস্ত ওরা পৌঁছে দেবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, দেশের প্রধানমন্ত্রী, বিচার বিভাগ এবং পরিবেশ সুরক্ষার আইনি কর্তৃপক্ষ ‘গ্রিন বেঞ্চ’-এর কাছে৷ আবেদন জানাবেন, গাছ না কেটে যেন বিকল্প পথ খোঁজা হয় উন্নয়ণের৷ কিন্তু গাছ কাটার বিরুদ্ধে কথা বলছেন বলে ওদের নামের পাশে উন্নয়ণ-বিরোধী তকমা বসে গেছে৷

এমনকি যে সোশাল মিডিয়াকে ওরা সচেতনতার প্রচার এবং সমর্থন জোগাড়ে ব্যবহার করছেন, সেখানেই গোপন বিরোধিতার মোকাবিলা করতে হচ্ছে৷ ওদের তৈরি ফেসবুক পাতার বিরুদ্ধে দলে দলে রিপোর্ট করে, সে পাতা বন্ধ করে দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে৷ ওরা বলছেন, ওরা কেবল গাছ বাঁচানোরই পক্ষে৷ তাও ওদের গায়ে রাজনীতির রং লাগানোর চেষ্টা চলছে৷

কবি বিভাস রায়চৌধুরি৷ পশ্চিমবঙ্গের সীমান্ত এলাকা বনগাঁর বাসিন্দা৷ তিনি ব্যক্তিগতভাবে যুক্ত হয়েছেন যশোর রোডের এই গাছ বাঁচাও আন্দোলনের সঙ্গে৷ জানালেন, অনেকের অনেক ধরনের স্বার্থ জড়িয়ে আছে এই গাছ কাটার উদ্যোগে, যাদের মধ্যে আছে স্থানীয় মাফিয়ারা৷ যে কারণে সাধারণ মানুষ, চরম ক্ষতি হতে যাচ্ছে জেনেও মুখ বুজে থাকছে৷ বরং পরিবেশকর্মীদের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছেন গরিব মানুষ, যাদের ভয়-ডর কম, হারাবারও বিশেষ কিছু নেই৷
 
তবে বিভাস রায়চৌধুরি এটাও মেনে নিচ্ছেন, যে রাস্তায় নেমে যে আন্দোলন হচ্ছে, তা মূলত আবেগপ্রসূত, সাধারণ পরিবেশপ্রেমী মানুষের বেদনাসঞ্জাত৷ কিন্তু এত গাছ কেটে নিলে যে পরিবেশ বিপর্যয় হবে যশোর রোড ও সংলগ্ন এলাকায়, সেকথা নীতি-নির্ধারকদের কাছে গুরুত্ব পাচ্ছে না৷ তাই একমাত্র বিচারবিভাগীয় হস্তক্ষেপেই এই বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়া যেতে পারে৷

যে কাজটি করেছে গণতান্ত্রিক অধিকার রক্ষা কমিটি ‘এপিডিআর’৷ ওদের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টে, যেটি খোদ প্রধান বিচারপতির এজলাসে শুনানি হবে৷ আর পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট পরিবেশ আন্দোলনকারী, যার হাত ধরে এই রাজ্যে একাধিক পরিবেশ সুরক্ষার আইনি বন্দোবস্ত সম্ভব হয়েছে, সেই সুভাষ দত্তকেও পাশে চাইছেন ওরা৷

আর সুভাষ দত্ত নিজে ডয়চে ভেলেকে জানালেন, যেহেতু একটি মামলা ইতোমধ্যে দায়ের হয়ে গেছে, স্বতঃপ্রবৃত্ত হয়ে তার কিছু করার সুযোগ এই মুহূর্তে নেই৷ তবু তিনি উদ্যোগী হবেন৷ কারণ তার চোখে অতিকায় সব গাছের ডালপালার সবুজ চাঁদোয়াও যশোর রোডের এক সম্পদ৷ সরকারের উচিত ছিল, গাছ বজায় রেখেই যশোর রোডের সম্প্রসারণের পরিকল্পনা নেওয়া৷ কিন্তু পরিবেশ সুরক্ষার ব্যাপারে সব দলের সরকার, এমনকি বিচার বিভাগের ভূমিকাও খুব হতাশাজনক৷

গত তিন দশকের পরিবেশ সৈনিক সুভাষ দত্ত অবশ্য এখনই হাল ছাড়তে রাজি নন৷ তবে সবাই এখন তাকিয়ে আছেন ২৮ এপ্রিল কলকাতা হাইকোর্টের শুনানিতে কী হয়, সেই দিকে৷ আর অন্যদিকে যশোর রোডের গাছ কাটার কাজও কিন্তু শুরু হয়ে গেছে৷ সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে সেই সব রক্তাক্ত ছবি৷ –ডিডব্লিউ

নতুন বার্তা/টিটি

 


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top
    close