বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭
webmail
Sun, 29 Oct, 2017 09:44:56 AM
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
নতুন বার্তা ডটকম

সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলাধীন ধোপাজান নদীতে ড্রেজার দিয়ে বালু ও পাথর উত্তোলন চলছেই। বার বার ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেও থামছেনা বালি-পাথর উত্তোলন।  পুলিশ, বিজিবি’র চোখ ফাঁকি দিয়ে অভিনব কৌশলে বালি ও পাথর উত্তোলন এভাবেই চলেছে প্রতিনিয়ত।  

অবৈধভাবে নদীরপাড় কেটে বালু উত্তোলন করায় ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে নদী তীরবর্তী গ্রামগুলো। আর এ তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে সীমান্তবর্তী এলাকার একটি বালুখেকো চক্র। এ চক্রের দাবী স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ম্যানেজ করেই বালি ও পাথর উত্তোলন  করা হচ্ছে। অন্যদিকে ফসলী জমি, বাড়িঘর রক্ষায় অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালি ও পাথর উত্তোলন বন্ধের দাবী স্থানীয় এলাকাবাসীর।

সরজমিনে গেলে স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন এ নদী দিয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে বাল্কহেড নৌকার সাথে বেঁধে ছোট নৌকায় করে ড্রেজার মেশিন নিয়ে এসে বালি ও পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। আর এ কাজে সহযোগিতা করছে একটি প্রভাবশালী বালু খেকোচক্র। তারা আরো ও  বলেন, সীমান্তবর্তী ডলুরা এলাকার সমরাজ মিয়ার ছেলে দিলোয়ার, ছমেদ এর ছেলে সাদেক, পুর্ব ডলুরা’র জয়নাল এর পুত্র আবু সালামসহ একটি চক্র সীমান্তবর্তী ডলুরা বিজিবিকে ম্যানেজ করেই ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে চুক্তির মাধ্যমে বিক্রি করছে। এরা প্রভাবশালী হওয়ায় কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী জানান, ভাল মানের বালু  সরবরাহ করার জন্য পুর্ব ডলুরা এলাকার আবু সালামের সাথে যোগাযোগ করছি। প্রতিফুট ১০ টাকা দাবী করে। আর বলে বিজিবি ম্যানেজ আমরা করব। ঐ ব্যবসায়ী আরো জানান,  একইভাবে এ চক্রের সদস্য সাদেক ও দিলোয়ারের সাথে যোগাযোগ করা হলে জানায়, আমরা বালু দিয়ে নৌকা লোড করে দেই বিজিবিসহ এভরিথিং ম্যানেজের দ্বায়িত্ব আমার। আপনি একবার এলাকায় আসেন। ডলুরা বিওপি’র হাবিলদার নুর ইসলাম বলেন, আমাদের ম্যানেজ করার বিষয়টি ভুল বলছে। যাদের নাম বলেছেন তাদের আটকের চেষ্টা করছি। আমি এখন নদীতে অভিযানে আছি। পরে কথা বলব।

নতুন বার্তা/কেকে


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top
    close