লাইফস্টাইলহেলথ টিপস

শীতে সুস্থ থাকার ৩টি উপায়

‘এই শীতে তোমার নিবিড় উষ্ণতা ছাড়া
কী আর চাওয়ার আছে?’

সবাই শীতে  প্রিয়তমের নিবিড় উষ্ণতা চায়। কিন্তু সে সৌভাগ্য কি আর সবার হয়? হয় না। কিন্তু প্রিয়তমের নিবিড় উষ্ণতা না পেলেও শীতকালে কম বেশি সবাই সর্দি কাশির দেখা পায়। শীতকাল ঠান্ডা লাগা, সর্দি-কাশি সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে। এসময় শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কম থাকে। তাই এ সময় সামান্য অবহেলা বা অসতর্কতা থেকেই শরীরে বাসা বাঁধে সর্দি-কাশির প্রকোপ। হাঁচি, কাশি সঙ্গে মাথা যন্ত্রণা, চোখ-নাক দিয়ে পানি পড়া এ সব শীতে খুব স্বাভাবিক সমস্যা। অসুখ করলে ওষুধ তো প্রয়োজনীয় বটেই, কিন্তু অসুখ হওয়ার আগেই তা রুখে দেওয়া সবচেয়ে ভাল উপায়। এই শীতে এমন অসুখের হাত থেকে বাঁচতে ও সংক্রমণ ঠেকাতে আস্থা রাখুন তিনটি  ঘরোয়া উপায়ে।

১। দারুচিনি-পানি

দারুচিনি যে কেবল রান্নার স্বাদ বাড়াতেই ব্যবহার করা হয় এমন নয়, ঠান্ডা লাগা প্রতিরোধেও এটি কাজ করে। দারুচিনি এমনিতেই প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের উৎসও এই দারুচিনি। গরম পানিতে কয়েক টুকরো দারুচিনি ফেলে তা ফুটিয়ে পান করুন। সাইনাস ও মাইগ্রেনের সমস্যাও কমিয়ে আরাম দেয় এই পানীয়।

২। মরিচ চা

পিপারিন থাকায় গোল মরিচ শরীরের রোগ প্রতিরোধের ক্ষমতা বাড়ায়। শুধু তাই-ই নয়, গোল মরিচ অ্যান্টিঅক্সিড্যান্টও। গলা বসে যাওয়া, নাক বন্ধ ইত্যাদি সমস্যা থেকে আরাম যেমন দেয়, তেমনই ঠান্ডার সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতারও জোগান দেয় এই গোল মরিচ। তরিতরকারিতে মরিচ দেওয়া ছাড়াও শীতে চায়ের সঙ্গে মিশিয়ে নিন এ‌ই গোল মরিচ। প্রতি দিন মরিচ চা খেলে শীতে সুস্থ থাকবে শরীর। ভাল ফল পেতে এতে কিছুটা মধু মেশাতে পারেন।

৩। আদা, লেবু ও মধু

আদা যে সর্দি-কাশির মতো অসুখে কাজে আসে, তা অনেকেরই জানা। আদায় থাকা জিঞ্জারল, জিঞ্জারন প্রভৃতি উপাদান অ্যান্টিইনফ্লেমটরি ও অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। ঠান্ডা লাগা থেকে বাঁচতে খুবই কাজে আসে আদা। এক কাপ পানিতে আদা কুচি ফেলে তা ফুটিয়ে নিন। এতে যোগ করুন লেবুর রস ও মধু। লেবু ও মধু দুই-ই প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট। নিয়ম করে খালি পেটে এই পানীয় খেলে শীতের অসুখের হাত থেকে তো বাঁচবেনই, এ ছাড়া শরীরে জমে থাকা টক্সিন দূর করতেও এটি অত্যন্ত কার্যকর।

তথ্য সুত্রঃ আনন্দবাজার

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker