মঙ্গলবার, ১৯ জুন ২০১৮
Mon, 12 Mar, 2018 03:00:36 PM
নিজস্ব প্রতিবেদক
নতুন বার্তা ডটকম

ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়ার চার মাসের জামিন মঞ্জুর করেছেন হাইকোর্ট।
 
বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

দুপুর দুইটায় জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শুরু হয়। শুনানিতে খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের বিরোধিতা করে যুক্তি উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহাবুবে আলম।

আদেশের প্রতিক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, আদালত যুক্তিসঙ্গত আদেশ দিয়েছেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি পেতে আর কোন বাধা নেই। আগামীকাল তিনি মুক্তি পাবেন বলেও আশা করছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা।

অন্যদিকে আইনমন্ত্রী বলেছেন, এই আদেশের ফলে প্রমানিত হলো যে বিচার বিভাগে সরকার হস্তক্ষেপ করে  না, বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন।

এদিকে, অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম জানিয়েছেন, আগামীকাল চেম্বার জজ আদালতে জামিনের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে।

এর আগে শুনানির জন্য সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে আজকের কার্যতালিকায় আবেদনটি এক নম্বরে রাখা হয়। রবিবার এ মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আদেশের জন্য নির্ধারিত দিন ছিল। কিন্তু বেলা ১১টা পর্যন্ত বিচারিক আদালত থেকে এ সংক্রান্ত নথি না আসায় আদেশ পিছিয়ে যায়। পরে, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ দুপুর ২টায় আদেশের জন্য দিন ঠিক করেন।

গেলো ২২শে ফেব্রুয়ারি, খালেদা জিয়ার কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল গ্রহণ করেন হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে তাঁর জামিনেরও আবেদন করেন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এছাড়া, ১৫ দিনের মধ্যে বিচারিক আদালতের নথি জমা দিতে নির্দেশ দেয়া হয়। গেলো ১৯শে ফেব্রুয়ারি, বিচারিক আদালতে এই রায়ের অনুলিপি প্রকাশিত হয়। পরের দিন খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা হাইকোর্টে আপিল করেন।

 ২২শে ফেব্রুয়ারি সকালে, খালেদা জিয়ার পক্ষে একটি জামিনের আবেদন করা হয়। এরপর ওইদিন আপিলের বিষয়ে শুনানি হয়। আদালত আপিলটি শুনানির জন্য গ্রহণ করে নথি তলব করেন। এছাড়া অর্থদণ্ডের আদেশ স্থগিত করেন। ২৫শে ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের ওপর শুনানি শেষ করে, নথি পাওয়ার পর আদেশ দেয়া হবে বলে অপেক্ষমান রাখেন হাইকোর্ট। নথি জমা দেয়ার নির্ধারিত সময় শেষ হয়েছে ৮ই মার্চ।

৮ই মার্চ খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি শহিদুল করিমের হাইকোর্ট বেঞ্চে নথির বিষয়টি নজরে আনলে রবিবার এটি কার্যতালিকায় রাখা হবে বলে জানান দুই বিচারপতি।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের প্রায় দুই কোটি ১১লাখ টাকা আত্মসাতের দায়ে গেলো ৮ই ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট, নাইকো দুর্নীতি মামলাসহ আরও ৩৫টি মামলা রয়েছে।

নতুন বার্তা/এমআর


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top