বুধবার, ২৮ জুন ২০১৭
webmail
Mon, 19 Jun, 2017 09:10:19 PM
নিজস্ব প্রতিবেদকর
নতুন বার্তা ডটকম

ঢাকা: চালের বাজার স্থিতিশীল করতে ব্যাংক হিসাবে টাকা না থাকলেও বাকিতে চাল আমদানি করতে ঋণপত্র খুলতে পারবেন ব্যবসায়ীরা। চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ সুবিধা পাবেন তারা।  

চাল আমদানির জন্য ঋণপত্র খুলতে ব্যবসায়ীদের নগদ অর্থ জমা দিতে হয়। নগদ টাকা না থাকায় ব্যবসায়ীরা ঋণপত্র খুলতে পারছেন না।

সোমবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগের মহাব্যাবস্থাপক সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে এই তথ্য জানানো হয়।

দেশে কার্যরত সব তফসিলি ব্যাংককে এই নির্দেশনা দিয়ে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সাম্প্রতিক সময়ে হাওর এলাকায় বন্যা, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে অতি বৃষ্টিসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে চালের স্বাভাবিক সরবরাহে বিঘ্ন ঘটছে। যার ফলে বাজারে অস্থিতিশীলতা দেখা যাচ্ছে। তাই চালের সরবরাহ নিশ্চিত করতে চাল আমদানিতে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এতে আরো বলা হয়, ধান, চাল ব্যবসায়ী ও মিল মালিকদের ঋণ পরিশোধ সময়সীমা পুনঃনির্ধারণ সংক্রান্ত ২০১০ সালের ২৯ ডিসেম্বর একটি সার্কুলার জারি হয়। ওই সার্কুলারে মিলমালিক ও ব্যবসায়ীদের ব্যাংক থেকে নেয়া সিসি (ক্যাশ ক্রেডিট বা নগদ টাকা ঋণ) অথবা ওডি (ওভার ড্রাফট বা সীমাতিরিক্ত ঋণ) ঋণ নিয়ে ৩০ দিনের মধ্যে তা পরিশোধ বা সমন্বয় করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। উক্ত নির্দেশনা যথাযথভাবে পরিপালন করার জন্য পুনরায় নির্দেশনা দেওয়া হলো।

নতুন বার্তা/এমআর


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top