ব্যবসা ও বাণিজ্যহোমপেজ স্লাইড ছবি

অল্প পুঁজিতে শুরু করা যায় যে পাঁচটি লাভজনক ব্যবসা

ফুয়াদ হাসান জন: বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ব্যবসার সবচেয়ে সেরা সময় পার করছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি খুবই দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে আর আমাদের রয়েছে এক বিশাল জনসংখ্যার বাজার। এজন্য বাংলাদেশকে ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য আদর্শ বাজার হিসেবে ধরা হয়। চাকরিজীবি, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী সকল মানুষই চায় তাদের একটি পরোক্ষ কিংবা অতিরিক্ত আয়ের উৎস থাকুক। যারা ক্ষুদ্র ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছেন, কিন্তু সিদ্ধান্ত নিতে পারছেন না যে কি করা যায়! আর তাই,এখানে কিছু অল্প পুঁজির কিন্তু লাভজনক ব্যবসার ধারণা নিয়ে এসেছি। যেগুলো খুবই স্বল্প পুঁজির প্রয়োজন হয় কিন্তু খুবই লাভজনক এবং সহজতর। চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক, বাংলাদেশের জন্য উপযোগী সফল কিছু ক্ষুদ্র ব্যবসার কথা।

১.ষ্টেশনারী দোকান: কোন স্কুল, কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয় বা যেকোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশে ষ্টেশনারী দোকান খুবই লাভজনক। বই, খাতা, কলম যাবতীয় শিক্ষা উপকরণের পাশাপাশি যদি ফটোকপি, প্রিন্টিং এর ব্যবস্থা রাখা যায়, তাহলে খুবই ভালো হয়। এই ব্যবসার মাধ্যমে সহজেই লাভবান হওয়া যায়l এই ব্যবসায় ঝুঁকি খুবই কম।

২.তাজা ফলের রসের দোকান: ভেজাল খাদ্য বাংলাদেশের একটা বড় সমস্যা। এই ভেজাল খাদ্যের ভীড়ে যদি ভেজালমুক্ত তাজা ফলের শরবত বাজারে আনা যায়, তাহলে সহজেই ব্যবসায় সফল হওয়া যায়। এই ব্যবসার সবচেয়ে কঠিন ধাপটি হচ্ছে ভেজালমুক্ত ফল সংগ্রহ করা। যারা এই ধাপটি পার হতে পারবে তাদের সফলতা অবধারিত। কারণ বাংলাদেশের উষ্ণ আবহাওয়ার কারণে, তীব্র গরমে সবাই চাইবে একটু তাজা ফলের শরবত খেয়ে শরীরটাকে শীতল করতে।

৩.লন্ড্রী সার্ভিস: আমাদের সবারই দৈনন্দিন জীবনের ব্যস্ততার কারণে, সময়ের অভাবে আমাদের ময়লা কাপড়গুলো আর ধোয়া হচ্ছে না। তাই এই সমস্যার সমাধান নিয়ে শুরু করা যেতে পেশাধার লন্ড্রী সার্ভিস। কাপড় ধোয়া, ইস্ত্রী করা এবং বাসায় পৌঁছে দেয়ার মত সেবা দেয়া যেতে পারে, ফলে সহজেই সেবা গ্রহীতা পাওয়া যাবে। এর জন্য খুবই স্বল্প পুঁজি প্রয়োজন।

৪.ভ্রাম্যমাণ ফুড কোর্ট:এ ব্যবসার সবচেয়ে ভাল দিক হচ্ছে যখন যেখানে মানুষের ভীড় হয়,আপনিও সেখানে আপনার সেবা নিয়ে হাজির হতে পারেন। যেমন ধরা যাক, সকালে আপনি টিফিন নিয়ে কোনো স্কুলের সামনে চলে যেতে পারেন, দুপুরে কোনো অফিসিয়াল এলাকায় আর বিকেলে কোনো পার্ক বা লেকের ধারে। কোন সময় কোথায় কি খাবার বিক্রি করবেন, এটা ঠিক মত পরিকল্পনা করলেই এ ব্যবসায় লাভ করা সম্ভব।

৫.বেড এন্ড ব্রেকফাষ্ট: বেড এন্ড ব্রেকফাষ্ট এ ধারণাটা ইউরোপ, আমেরিকার মত উন্নত দেশগুলোও খুবই পরিচিত।আমাদের দেশে এখনও তেমনভাবে এটি পরিচিত নয়। ধারণাটি হলো ধরেন, কেউ ঢাকায় এসেছে কোনো কাজে, সে কম খরচে একটি রাত থাকার জায়গা খুঁজছে। আর আপনার বাসার একটা রুম বা একটা বেড খালি পরে আছে,আপনি তাকে আপনার রুম বা বিছানা ভাড়া দিতে পারেন এবং সকালের নাস্তাও দিতে পারেন। আপনি ফেসবুক এর বিভিন্ন গ্রুপে কিংবা অনলাইনে বিভিন্ন লোকাল লিস্টিং-এ আপনার সেবা সম্পর্কে মানুষকে জানাতে পারেন। নিরাপত্তার জন্য আপনি অতিথির জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি এবং ঠিকানা সংগ্রহ করতে পারেন। বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ পর্যটন খুবই বৃদ্ধি পেয়েছে তাই পর্যটন অঞ্চল সহ শহরাঞ্চলে বেড এন্ড ব্রেকফাস্ট সেবার মাধ্যমে সফল হওয়া সম্ভব। এতে তেমন কোনো পুঁজিরও প্রয়োজন হয়না।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker