সমাজের মেধাবি ছেলেগুলো জঙ্গি হচ্ছে | opinion | natunbarta.com | Top Online Newspaper in Bangladesh
বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৭
webmail
Fri, 05 Aug, 2016 08:38:53 PM
তসলিমা নাসরিন

তাকিউর রহমানের জীবনের কথা বলছি। তার বাবা বগুড়ার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী। ১৯৯৬ সালে তাকিউর ভারতের দার্জিলিং-এ একটি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়তে শুরু করে। ২০০৪ সালে সেখান থেকে ‘ও লেভেল’ এবং ২০০৬ সালে ঢাকার লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজ থেকে ‘এ লেভেল’ পাশ করে।

এরপর লন্ডনের ক্যানটারবেরি ক্যান্ট ইউনিভার্সিটিতে ভর্তি হয়। সেখানে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করে ২০০৯ সালে। পরের বছর লন্ডন থেকেই বার-এট-ল (ব্যারিস্টার) শেষ করে। ইন্টার্নি শেষে ২০১১ সালের প্রথম দিকে দেশে ফেরে। এরপর থেকে হাইকোর্টে প্র্যাকটিসের পাশাপাশি লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজ ও ভুঁইয়া একাডেমিসহ ৪-৫টি প্রতিষ্ঠানে আইন বিষয়ে শিক্ষকতা করে।

২০১১ সালে প্রেম করে এক কর্নেলের মেয়েকে বিয়ে করে। এরপর স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকার লাক্সারি ফ্ল্যাটে থাকতে শুরু করে। হাইকোর্টে প্র্যাকটিস, টিউশনি ও শিক্ষকতা করে মাসে এক লাখ ৪০ হাজার টাকা আয় করতো। এই তাকিউরই হঠাৎ করেই দাড়ি রাখতে আর নামাজ রোজা করতে শুরু করে ।

গত বছরের এপ্রিলের শুরুতে তাকিউর তার স্ত্রী কন্যাকে নিয়ে ওমরাহ হজ পালন করতে যায়। ১৩ এপ্রিল ফোনে আত্মীয়-স্বজনকে জানায়, তারা সৌদি আরবে আছে। ওমরাহ শেষ হলে ২২ এপ্রিল দেশে ফিরবে। কিন্তু ২২ এপ্রিলে তাকিউর দেশে ফেরে না। কয়েক মাস পর অজ্ঞাত একটি নম্বর থেকে বাবাকে ফোন করে তাকিউর বলে, তারা ভাল আছে।

কোথায় আছে তাকিউর? তাকিউর সিরিয়ায়। মানুষ মারার ট্রেনিং নিচ্ছে। একসময় দেশে ফিরে নিরীহ মানুষগুলোকে কুপিয়ে মারবে। মারার সময় চিৎকার করে বলবে ‘ আল্লাহু আকবর’। এই আল্লাহু আকবর ধ্বনিটা তাকিউরকে এত উৎসাহ দেবে, এত শক্তি এবং সাহস জোগাবে যে সে আরও মানুষকে কোপাবে। কোপাতে তার হাত এতটুকু কাঁপবে না। বুক তো কাঁপবেই না।

সমাজের মেধাবি ছেলেগুলো জঙ্গি হচ্ছে। ভালো ছেলেগুলো ঘর ছাড়ছে। পড়ে থাকছে অরডিনারি ছেলে। ভালোরা হয় মারছে নয় মরছে। মাদ্রাসায় কোরান পড়া ডাল ছেলেগুলোও জঙ্গি হচ্ছে। ছোটবেলা থেকে ওদের জঙ্গি হিসেবে তৈরি করা হয় বলে হচ্ছে। কিন্তু তাকিউরের মতো উচ্চ শিক্ষিত ব্যারিস্টার কী করে জঙ্গি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, সেটিই ভাবনার বিষয়। মাদ্রাসা বন্ধ করে, বা সিলেবাস পাল্টে দিয়ে মাদ্রাসাকে জঙ্গি তৈরির কারাখানা বানানো হয়তো রোধ করা যাবে। কিন্তু তাকিউরদের বাঁচানোর উপায় কী? বড় হওয়ার পর, বুদ্ধি হওয়ার পর, নানা পড়াশোনা করার পর, দুনিয়া দেখার পর কেন ইসলাম নামের ১৪০০ বছরের পুরোনো একটি ধর্ম এত সহজে তাদের বোকা বানাতে পারে?

ব্যারিস্টার ছেলেটি কি শুধুই মানুষের গলা কাটতে পারবে এই আনন্দে ঢুকেছে আইসিসে? নাকি হঠাৎ করে সে তার বড়বেলায় বিশ্বাস করতে শুরু করেছে অবিশ্বাসীদের হত্যা করলে বেহেসত মিলবে। অথবা দুনিয়ার যত অমুসলিম আছে সবাইকে হত্যা করে পৃথিবীটাকে শুধু মুসলমানদের পৃথিবী বানানোটা মুসলমানদের প্রধান কাজ। এই ব্রেন নিয়ে কী করে ছেলেটা ও লেভেল, এ লেভেল, আর ব্যারিস্টারি পাশ করলো, বুঝে পাই না।

লেখিকা: ভারতে নির্বাসিত।

নতুন বার্তা/এইচএস


Print
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ


শিরোনাম
Top