সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
webmail
Tue, 08 Nov, 2016 08:41:13 PM
আলী নিয়ামত

ভাল কাজে প্রতিযোগিতায় যেমন মানসিক আনন্দ আছে, তেমনি রয়েছে সামাজিক দায়বদ্ধতা।

সমাজবন্ধু তারাই যাঁরা সমাজের অসহায় এবং দুঃখি মানুষের পাশে অকাতরে দাঁড়ায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবরই সাংবাদিক বান্ধব এবং দুঃখি মানুষের বন্ধু। তাই তিনি নিজ দায়িত্বে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করেছেন। প্রাথমিকভাবে পাঁচ কোটি টাকা সরকারি অনুদান দিয়েছেন। তাঁর আহ্বানে সাড়া দিয়েই ২৫ অক্টোবর মাছরাঙা টেলিভিশনের পক্ষে ব্যবন্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী ৩ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছেন ট্রাস্টে। ৬ নভেম্বর সন্ধ্যায় ইত্তেফাক গ্রুপ অব পাবলিকেশন্স লিঃ একইভাবে সাড়া দিয়ে  ৪ কোটি টাকা অনুদানের চেক প্রধানমন্ত্রীর হাতে দিয়েছেন।

দুস্থ, অসহায়, নির্যাতিত এবং নিপীড়িত সাংবাদিকদের জন্য এর চেয়ে সুখকর খবর আর কি হতে পারে? যেমন, দেশজুড়ে মাত্র ১০ টাকায় দুঃখি, অসহায় ও নিঃস্ব মানুষ আজ চাল পাচ্ছে। ঘরে ঘরে প্রকৃত দুস্থ মানুষকে খুঁজে বের করার জন্য প্রধানমন্ত্রী আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের প্রতি। যদিও এই গণ কল্যাণমুখি কর্মসূচীতে কিছু কিছু স্বজনপ্রীতি ও দুর্নিতির খবর গণ মাধ্যমে এসেছে, আসছে। যা কঠোর হাতে দমন করা সরকারের উচিত।

স্বাধীনতা অর্জনের ৪৫ বছরের যাত্রায় এর চেয়ে ভাল কাজ আর কিছু  আছে বলে আমার জানা নেই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দুঃখি মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে আমরণ সংগ্রাম করে গেছেন।

তাঁরই সুযোগ্য কন্যা বিশ্বনেত্রী বঙ্গোত্তম শেখ হাসিনা দুঃখি মানুষ এবং অসহায় সাংবাদিকদের মুখে হাসি ফোটাচ্ছেন, দরদী মন ও হৃদয় নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়িছেন আজ। তাঁর এই মহতী উদ্যোগ ও অবদানকে আমরা যেন কোনদিন ভুলে না যাই। বরং প্রতিযোগিতায় এগিয়ে আসি, নিজ নিজ সামর্থ্য অনুযায়ী, নিজ নিজ অবস্থান থেকে- যাতেকরে দুঃখি মানুষ এবং অসহায় সাংবাদিকেরা একটু হলেও সুখ আর শান্তি ফিরে পায়। মহান সৃষ্টিকর্তার ইসলাম ধর্ম মতে, ভাল কাজে প্রতিযোগিতা করার নির্দেশনা রয়েছে। আসুন, সবাই তাই ভাল কাজে প্রতিযোগিতা করি।

(লেখক: সম্পাদক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই নিউজ এবং সভাপতি, বাংলাদেশ উন্নয়ন সাংবাদিক ও লেখক ফোরাম। এখানে প্রকাশিত সব মতামত লেখকের ব্যক্তিগত, নতুন বার্তা ডটকম’র সম্পাদকীয় নীতির আওতাভুক্ত নয়।)


Print
আরো খবর
    সর্বশেষ সংবাদ


    শিরোনাম
    Top
    close