সারাজীবন বইতে হবে এ কলঙ্ক | sports | natunbarta.com | Top Online Newspaper in Bangladesh
বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৭
webmail
Sun, 19 Mar, 2017 09:36:51 AM
নতুন বার্তা ডেস্ক

ডোপিংয়ের দায়ে টেনিস থেকে তার নির্বাসন ছিল বিতর্কিত। শাস্তি কাটিয়ে ফেরার আগেও জড়িয়েছেন ওয়াইল্ড কার্ড বিতর্কে। মাঝের পনেরোটা মাস কেমন কাটে তার? একটি পত্রিকায় আন্তরিক সাক্ষাৎকারে নিজেই জানিয়েছেন মারিয়া শারাপোভা।

ব্যক্তি মাশার নানা ঝলক সেখানে।যেমন টেনিস সুন্দরী নাকি এমন আদা-চা বানান যে, তার এক চুমুকে নিমেষে সেরে যায় মাথাব্যথা। আধুনিক শিল্প আর স্থাপত্যে অগাধ আগ্রহ তাঁর।ক্যালিফোর্নিয়ার ম্যানহ্যাটান বিচে তার ধূসর আর সাদায় সাজানো বাড়িতে চিহ্ন নেই টেনিসের। বরং মেরিলিন মনরো’র সাদাকালো ছবি সযত্নে বাঁধিয়ে রেখেছেন টেনিসের গ্ল্যামার-রানি।  জীবন, নির্বাসন, প্রেম, প্রত্যাবর্তন— শারাপোভা অকপট সব নিয়েই।

কেমন কাটল পনেরো মাস

দারুণ! এই প্রথম একটা নিরবিচ্ছিন্ন সামাজিক জীবন ছিল। বেড়িয়েছি ক্রোয়েশিয়া, বার্সেলোনায়। উইম্বলডন চিনতাম। এই প্রথম লন্ডনের অলিগলি ঘুরলাম। বই পড়েছি, ‘লাভ ওয়ারিয়র’, ‘দ্য গ্লাস ক্যাসল’। ব্র্যান্ড ম্যানেজমেন্টের কোর্স করেছি হাভার্ডে। লন্ডনের বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপন সংস্থার কাজ করেছি। হ্যাঁ, নিজের জীবন নিয়ে একটা বইও লিখেছি। সেপ্টেম্বরে প্রকাশ হবে।

নির্বাসনের কঠিন দিক

আদালতের লড়াইটা। আমি শক্ত মেয়ে। তবু ভেঙে পড়েছি মাঝে মাঝে। অবশ্য সাধারণ মানুষ পাশে ছিলেন, আমি কৃতজ্ঞ।

ডোপ কলঙ্ক

অপরাধী হলে কি নিজেই কবুল করতাম? অসতর্কতার মাসুল দিলাম। তবে এটাও জানি, সারাজীবন লোকে আমাকে সন্দেহ করে যাবে। কলঙ্কটা বয়ে বেড়াতে হবে।

ডেটিং নিয়ে পরীক্ষা

জীবনে এই প্রথম একসঙ্গে দু’জন পুরুষকে ডেট করলাম। মাথায় যে কী ঢুকেছিল কে জানে! তবে ব্যাপারটা মন্দ নয়। বেশ ভালই লাগল!

পুরনো প্রেমিক দিমিত্রভ

সম্পর্কটা শেষ হলেও গ্রিগর আমার জীবনে অসম্ভব গুরুত্বপূর্ণ। মাস দুই আগে নিউ ইয়র্কের রেস্তোরাঁয় দেখা হল। দু’জনে পাঁচ ঘণ্টা গল্প করলাম। ও যেমন জটিল, তেমনই কোমল।

বিয়ে ও সন্তান

মনের মানুষ পাওয়া কি সত্যিই যায়? সন্তান চাই। কিন্তু কাজে এতটাই ডুবে থাকি যে, আমার কোনও সম্পর্ক টেকে না। পরিবার আর কাজের মধ্যে ভারসাম্য বিষয়টা বুঝি না। মনে হয়, তা হলে কোনও দিকেই একশোভাগ দিচ্ছি না।

সেরিনা উইলিয়ামস

পরপর চোট পেয়েও ঘুরে দাঁড়ানো কতটা কঠিন আমি জানি। সেরিনা তার পরেও ফিরে এসে জেতার খিদেটা ধরে রাখছে। অ্যাথলিট সেরিনাকে অসম্ভব শ্রদ্ধা করি।

কোর্টে নিজের কাছে প্রত্যাশা

সর্বোচ্চ পর্যায়ে জেতার ক্ষমতা আমার এখনও আছে। তবে সম্ভবত তার জন্য ধৈর্য্য ধরতে হবে। সমস্যা হল, ধৈর্য্য ব্যাপারটা আমার সেরা শক্তি নয়!

নতুন বার্তা/এমআর


Print
আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদ


শিরোনাম
Top