খেলা

আহত বাঘেরা কি পারবে স্বপ্ন পূরণ করতে?

ঢাকা: মনে পড়ে ২০১২ সালের এশিয়া কাপের সেই দুঃসহ স্মৃতি? সেই এশিয়া কাপে বাংলাদেশের প্রত্যক ক্রিকেট অনুরাগীদের চোখে জল এনে দিয়েছিলো সাকিব, মুশফিকরা! এশিয়া কাপ মানেই যেন বাংলাদেশের স্বপ্ন ছুঁতে না পারার আক্ষেপ। তাই এশিয়া কাপ শুরু হলেই চোখের সামনে ভেসে আসে ২০১২ সালের স্মৃতি। সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিমদের কান্নাভেজা চোখের ছবি আজও চোখের সামনে জ্বলজ্বল করে।
হোম অব গ্রাউন্ড মিরপুরে ওই আসরের ফাইনালে পাকিস্তানের বিপক্ষে ২ রানের হারের ক্ষত আজও বয়ে বেড়াচ্ছেন কোটি কোটি টাইগার ভক্ত।
শিরোপা হারানোর বেদনায় সাকিব, মুশফিকদের সাথে কেঁদেছেন মাঠের ভেতরে ও বাইরে থাকা টাইগার ভক্তরা। ২০১৬ সালে এশিয়া কাপের ফারম্যাটে আসে পরিবর্তন। ৫০ ওভারের ম্যাচের পরিবর্তে খেলা হয় টি২০ ফরম্যাটে।
এবারো শিরোপা হাতছাড়া। এবার প্রতিপক্ষ ভারত। তবে হারের ব্যবধানটা অনেক বেশি। ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ।
দুই বছর পর আবারো মাঠে গড়িয়েছে এশিয়া কাপের আসর। ছয়বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতের মুখোমুখি আবারো বাংলাদেশ। শুক্রবার দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় মাঠে গড়াবে ১৪তম আসরের ফাইনাল।
এশিয়া কাপের এবারের আসরে তিনটি জয় ও দুটিতে পরাজিত হয়েছে বাংলাদেশ। অন্যদিকে ভারত এখনো টুর্নামেন্টে হারের স্বাদ পায়নি। সর্বশেষ আফগানিস্তানের বিপক্ষে হারতে হারতে ড্র করেছে ভারত।
গত কয়েক বছর ধরে ভারতের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ উপহার দিয়ে আসছে বাংলাদেশ। গত টি২০ বিশ্বকাপে ভারতের মাটিতে ১ রানে হারে বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের ভুলের কারণে এই পরাজয়ও কান্নার সাগরে ভাসিয়ে দেয় টাইগার ভক্তদের। এছাড়া সর্বশেষ নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে শেষ ওভারে এসে পরাজয়ের স্বাদ পায় বাংলাদেশ।
আজকের ম্যাচেও এমন প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা টাইগাররা উপহার দেবেন এমন প্রত্যাশাই সবার। আর টাইগাররা যতি তাদের সেরাটা উপহার দিতে পারে তাহলে শিরোপার খরাটাও ঘুচবে এমনটাই মনে করেন কোটি কোটি টাইগার সমর্থক।
কাগজে কলমে ভারত অনেক শক্তিশালী দল। অন্যদিকে বাংলাদেশ শিবিরে রয়েছে ইনজুরির ক্ষত। ইনজুরিতে পড়ে দলে নেই তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান। পাশাপাশি মাশরাফি এবং মুশফিকুর রহিমও ইনজুরি নিয়েই খেলছেন। এছাড়া আবুধাবি থেকে দুবাইয়ে গিয়ে খেলতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। ভ্রমণের ক্লান্তিও তো রয়ে গেছে দলে।
তবে আজকের ম্যাচে বাংলাদেশের হারানোর কিছু নেই। দলের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মিডল অর্ডারে দারুণ ছন্দে থাকা মোহাম্মাদ মিঠুন ও ইমরুল কায়েস এবং বাকি দুই একজন ব্যাটসম্যান যদি তাদের দায়িত্বটা ঠিকমতো পালন করতে পারেন তাহলে ভালো কিছুই হতে পারে।
এছাড়া বল হাতে এবারের আসরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (১৮টি) উইকেট শিকারি মুস্তাফিজুর রহমান, স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ, অধিনায়ক মাশরাফি ও রুবেল হোসেন যদি জ্বলে উঠতে পারেন তাহলে প্রথমবার এশিয়া কাপের শিরোপাও ঘরে তুলতে পারবে টাইগাররা। বাংলাদেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা সেটাই চায়! তবে চাওয়া পাওয়ার হিসাব কি মিলবে নাকি আবার স্বপ্নের ট্রফি ছুঁতে না আক্ষেপ? তার জন্য অপেক্ষা করতে খেলা শেষ হওয়া পর্যন্ত।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker