খেলাহোমপেজ স্লাইড ছবি

টিম টাইগারের সামনে নতুন ইতিহাস গড়ার হাতছানি

মঞ্জুর দেওয়ান: একটা সময় ছিলো যখন বাংলাদেশকে বলে কয়ে হারাতো বিশ্ব ক্রিকেটের দলগুলো। ইনিংসের সম্পূর্ণ ওভার খেলার আগেই গুটিয়ে যেত টিম বাংলাদেশ। তবে এখনকার বাংলাদেশ পুরো ভিন্ন। বিশ্বের যেকোন দলই এখন বাংলাদেশকে সমীহ করে কথা বলে। বাংলাদেশের ক্রিকেট বিগত কয়েক বছরে একটি সন্মানজনক স্থানে পৌঁছেছে এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই। আমূল পরিবর্তন এসেছে মাঠের পারফর্মেন্সে। ঘরের মাঠে বাংলাদেশ যেন অপ্রতিরোধ্য! পাকিস্তান, ভারত, সাউথ আফ্রিকার মতো দলকে নাস্তানুবাদ করে ছেড়েছে সাকিব, তামিম, মাশরাফিরা। তবে বিদেশের মাটিতে তুলনামূলক খারাপ পরিসংখ্যান টাইগারদের।

যদিও বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারানো, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সেমিফাইনাল খেলা কিংবা নিদাহাস ট্রফির ফাইনাল খেলা ছাড়াও বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের অনেক অর্জন আছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ক্যারিবিয়ানদের ধবল ধোলাই করার সুখকর স্মৃতিও রয়েছে টাইগারদের। কিন্তু একটা জায়গায় গিয়ে বাংলাদেশ নিয়মিত আটকে যায়। হয়তো আন্দাজ করতে পারছেন কোন দলকে নিয়ে কথা বলছি। হ্যা, দলটির নাম নিউজিল্যান্ড। দেশের মাটিতে কিউইদের দুই দুইবার ধবল ধোলাই করার অভিজ্ঞতা থাকলেও নিউজিল্যান্ডে গিয়ে ব্লাক ক্যাপদের এখনো হারানো হয়নি বাংলাদেশের।

এখন পর্যন্ত ১০টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেও জিততে পারেনি মাশরাফিরা। মাঝে সম্ভাবনা জাগিয়েও নিভে গেছে আশার প্রদীপ। এবারের সিরিজ নিয়েও তাই চুলচেরা বিশ্লেষণ চলছে। কারণ অন্যান্য বারের চেয়ে এবারের সিরিজ আরো বেশি গুরুত্ব বহন করছে টিম টাইগারগের জন্য। কেননা, ২০১৯ বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় প্রস্তুতির মহড়া হবে এই নিউজিল্যান্ড সিরিজ। নেপিয়ার, ক্রাইস্টচার্চের পারফর্মেন্সই বলে দিবে, ইংল্যান্ডে বাংলাদেশের কন্ডিশন কেমন হবে। যার কারণে এই সিরিজকে বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় প্রস্তুতি হিসেবে ধরা হচ্ছে। কিউইদের সাথে এখন পর্যন্ত ৭টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। জয় তো দূরে থাক; একটি ম্যাচ ড্র ও করতে পারেনি সাকিব, মুশফিকরা।

বিগত সিরিজে সাকিব আল হাসানের জোড়া শতক ও মুশফিকুর রহিমের সেঞ্চুরি, বাংলাদেশ শিবিরে আনন্দের উপলক্ষ্য হলেও তা হাওয়ায় মিলিয়ে গেছে পরের দিনই। ২০১৬-১৭ মৌসুমে ওয়েলিংটনের প্রথম টেস্ট পঞ্চম দিনেই গড়াতে দেয়নি কিউইরা। ঝড়ো ইনিংসের সুবাদে চতুর্থ দিনেই টেস্ট জিতে নেয় ব্ল্যাক ক্যাপরা। তাও আবার ৯ উইকেটে ! এবারের সিরিজেও তাই শঙ্কা রয়েছে। এবারের সূচিতে তিনটি টেস্ট ম্যাচ রয়েছে বাংলাদেশের। কিউই পেসারদের গতি সামলানোই বড় চ্যালেঞ্জ হতে পারে টাইগারদের।

সদ্য সমাপ্ত বিপিএলের পারফর্মেন্স দেখে সঠিক দল নির্বাচন করতে সক্ষম হয়েছে কোচ স্টিভ রোডস। ফর্মে থাকা ব্যাটসম্যান ও বোলার খুঁজে পেলেও বাংলাদেশ হারিয়েছে এক মহামূল্যবান রত্নকে। বিপিএলের ফাইনাল যাকে ছিটকে দিয়েছে নিউজিল্যান্ড সিরিজ থেকে। আঙ্গুলে চোট পাওয়ায় সাকিবকে এখন টিভিতে বসেই নিউজিল্যান্ড সিরিজ দেখতে হবে। বিগত নিউজিল্যান্ড সিরিজে সাকিবের পারফর্মেন্স কতটা মিস করবে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। অন্যদিকে পেস নির্ভর পিচে তাসকিনের অনুপস্থিতি ভোগাবে বাংলাদেশকে। তাই নিজেদের আন্ডারডগ মেনেই নিউজিল্যান্ড সিরিজ শুরু করতে যাচ্ছেন কোচ স্টিভ রোডস।

এর আগে অবশ্য আন্ডারডগ হয়েও অবাক করা অনেক মুহূর্তু উপহার দিয়েছে বাংলাদেশ। দলের সেরা তারকা না থাকলেও তাই ভালো করা প্রত্যাশা মাশরাফি বিন মর্তুজার। সাকিবের অনুপস্থিতি ভোগাবে সত্যি. কিন্তু যা আছে তাই নিয়ে লড়াই করে যাওয়ার প্রত্যাশা ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিকের। বৈরি আবহাওয়া নিউজিল্যান্ডের জন্য আশীর্বাদ হলেও বাংলাদেশের জন্য অভিশাপ। তীব্র ঠাণ্ডার চেয়েও ভয়াবহ হয়ে দাঁড়ায় সেখানকার বাতাস। কিউই পেসাররা বাতাসকে কাজে লাগিয়ে সফল হলেও ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বের হতে পারেনা বাংলাদেশ। শনিবার লিংকনে নিউজিল্যান্ড একাদশের বিপক্ষের প্রস্তুতি ম্যাচই যার উদাহরণ। আশা জাগানিয়া পারফর্মেন্সের পরও সে ম্যাচে জয়ের দেখা পায়নি মুশফিক, মিরাজরা। তবে কন্ডিশন কাজে লাগাতে পারলে জয় দিয়েই শুরু হবে নিউজিল্যান্ড অভিযান।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker