খেলা

দাবা খেলার তিন উজ্জল নক্ষত্র

হাফিজা আখতার: খেলার জগতে দাবা একটি জনপ্রিয় এবং প্রাচীন খেলা। দাবা খেলার সর্বপ্রথম সূচনা হয় ভারতবর্ষে। যিনি দাবা খেলেন তিনি দাবাড়ু হিসেবে আখ্যায়িত। দাবায় দু’জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে। আজ এমন তিনজন দাবা খেলোয়াড় সম্পর্কে আলোচনা করবো যারা বর্তমান সময়ে দাবা খেলার জগতে উজ্জল নক্ষত্র।

জুডিত পোলগার: বিশ্বের অন্যতম একজন নারী দাবাড়ু জুডিত পোলগার । তার জন্ম ১৯৭৫ সালে। তার বাবা লাজলো পোলগার ছিলেন একজন শিক্ষক। তিনি ছিলেন তার পরিবারের ছোট সদস্য। জুডিত পোলগার এবং তার দুই বোন সুজান ও সোফিয়াকে দাবা খেলায় উদ্ধুদ্ধ করেন বাবা লাজলো পোলগার ও মাতা ক্লারার। জুডিত পোলগার বিশ্বে প্রথম নারী দাবাড়ু হিসেবে বিশ্ব দাবা চ্যাম্পিয়নশিপে কোয়ালিফাই হন। ১৯৮৮ সালের দাবা চ্যাম্পিয়নশীপে জয়লাভ করেন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে তিনি সর্বকনিষ্ট মহিলা গ্রান্ডমাস্টার কৃতিত্ব লাভ করেন। ২০০৫ সালে তিনি র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ আটে প্রবেশ করেন। এই সময় তিনি ইতিহাস সেরা কয়েকজন গ্রান্ডমাস্টারকে হারাতে সক্ষম হন। তাদের মধ্যে অন্যতম আনাতোলি করপোভ, বিশ্বনাথ আনন্দ এবং গ্যারি ক্যাসপারোভ।

 

ম্যাগনাস কার্লসেন: দাবা খেলা জগতের আরও এক উজ্জল নক্ষত্র ম্যাগনাস কার্লসেন। তার পুরো নাম ভেন ম্যাগনাস ওয়েন কার্লসেন। তিনি ১৯৯০ সালের ৩০ নভেম্বর নরওয়ের ভেস্টফোন্ড অঞ্চলের টন্সবার্গে জন্মগ্রহন করেন। মাত্র ৫ বছর বয়সে তার দাবা খেলার যাত্রা শুরু হয়। তিনি ৮ বছর বয়সে দাবা খেলা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। ২০০৪ সালে ১৩ বছর ১৪৮ দিন বয়সে গ্রান্ডমাস্টার কৃতিত্ব লাভ করেন। ২০১০ সালে তিনি বিশ্ব র‌্যাংকিং এ ১ম স্থান লাভ করেন। ২০১৩ সালে ম্যাগনাস ইতিহাসের সর্বোচ্চ রেটিং লাভ করেন একই সাথে বিশ্বনাথ আনন্দকে পরাজিত করে বিশ্ব দাবা চ্যাম্পিয়ন হন। তার এই অসমান্য প্রতিভার জন্য তাকে মোজার্ট অফ চেস নামে আখ্যায়িত করা হয়।

 

 

বিশ্বনাথ আনন্দ: বিশ্বের ধ্রুপদী দাবাড়ুর মধ্যে একজন হলেন বিশ্বনাথ আনন্দ। তিনি ৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন একই সাথে ভারতের প্রথম গ্র্যান্ড মাস্টার। বিশ্বনাথ আনন্দ চেন্নাইয়ে ১৯৬৯ সালের ১১ ডিসেম্বর জন্ম গ্রহণ করেন। ১৯৯৬ সালে বিশ্ব ব্লিৎজ ফাইনালে গ্যারি কামপারোভকে হারিয়ে ব্লিৎজ চ্যাম্পিয়ন হন। ২০০৭ সালে ভ্লাদিমির ক্রামনিককে পরাজিত করে ভারতীয হিসেবে দাবা বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হন। তিনি প্রথম খেলোয়াড় যিনি নকআউট, টুর্নামেন্ট এবং ম্যাচ ফরম্যাটে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। তার আক্রমণাত্মক খেলার জন্য তাকে টাইগার অফ মাদ্রাজ উপাধি দেওয়া হয়।

 

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker