ক্রিকেটখেলাহোমপেজ স্লাইড ছবি

ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের আদ্যোপান্ত

এস.কে.শাওন: ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজে মাসাকাদজার বিদায়ী ম্যাচে টি-২০ এর কালো ঘোড়া আফগানিস্তানকে উড়িয়ে দিয়েছে নড়বড়ে জিম্বাবুয়ে। এই টুর্নামেন্টে আফগানিস্তানের সাথে প্রথম দেখায় বাংলাদেশ কোন রকম লড়াই ছাড়াই পরাজয় বরণ করে নিয়েছে। জিম্বাবুয়ের সাথে প্রথম দেখায় হারতে হারতে জিতে গেছে বাংলাদেশ। আফগানিস্তানের সাথে দ্বিতীয় সাক্ষাতে সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতেছে সাকিব বাহিনী। যদিওবা এই জয়ে দীর্ঘ ৫ বছর পর আফগান জুজু কেটেছে টাইগারদের। এভাবে টুর্নামেন্টটি দেখেছে তিন দলের উথান পতনের চিত্র! চলুন জেনে নেই ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের উথান পতনের গল্প।

বাংলাদেশ বনাম আফগানিস্তান: গত কয়েক বছর যাবৎ টি-২০ ক্রিকেটে আফগানিস্তান যেন বেপরোয়া হয়ে গেছে!বিশেষ করে বাংলাদেশ তো পাত্তাই পায়নি গত ৪ ম্যাচে। তিন জাতি টুর্নামেন্টে প্রথম দেখায় টিম বাংলাদেশ হেরেছে ২৫ রানে। ম্যাচটিতে প্রথম ইনিংসে আফগানিস্তানের শুরুটা ভালো না হলেও তারা শেষটা রাঙিয়ে ১৬৫ রানের চ্যালেঞ্জিং টার্গেট জুড়ে দেয় বাংলাদেশকে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানদের আসা যাওয়ার মিছিলে কোন বড় জুটি দাঁড় করাতে পারেনি ডমিঙ্গোর শিষ্যরা। উল্লেখযোগ্য রান বলতে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ৪৪ রানের সাথে সাব্বিরের ২৪ রান।বাকিরা তেমন সুবিধে করতে পারেননি। ফলাফল কোন প্রকার লড়াই না করেই ১৩৯ রানে প্যাকেট সাকিবের দল। ৭ ছক্কা ও ৩ টি চারে ৫৪ বলে ৮৪ রানের পাগলাটে ইনিংস খেলে ম্যাচসেরা হন মোহাম্মদ নবী।

দ্বিতীয় সাক্ষাতে আফগানিস্তান টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ওপেনিং জুটিতে করে ৭৫ রান। সেই জুটিতে ভাঙন ধরান তরুণ অফ স্পিনার আফিফ। এক ওভারে ২ উইকেট নিয়ে আফগানদের রানের গতি কমান এই অলরাউন্ডার। তারপর টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে না পারায় ২০ ওভারে ১৩৮ রানের পুঁজি পায় আফগানিস্তান। সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই হোচট খায় বাংলাদেশ। দলীয় ১২ রানে নাই ২ উইকেট! রানের খরায় ভুগতে থাকা সাকিব -মুশফিক গড়েন ৫৮ রানের জুটি। মুশফিক ব্যক্তিগত ২৬ রানে বিদায় নিলেও সাকিব ৪৫ বলে ৭০ রান করেন। মুশফিক প্যাভিলিয়নে ফেরার পর রিয়াদ, সাব্বির ও আফিফ রানের চাকা সচল রাখতে ব্যর্থ হন। মোসাদ্দেক ক্রিজে নামার পর সাকিবকে সঙ্গ দিয়ে ম্যাচ জেতাতে ভূমিকা রাখেন। করেন ১২ বলে ১৯ রান। বাংলাদেশ জয় পায় ৪ উইকেটে। হাত ঘুরিয়ে ১ উইকেট ও ব্যাটিংয়ে ৭০ রান করে ম্যাচসেরার পুরস্কার পান সাকিব।

বাংলাদেশ বনাম জিম্বাবুয়ে: বৃষ্টিবিঘ্নিত প্রথম ম্যাচটি গড়ায় ১৮ ওভারে। টস হেরে প্রথমে জিম্বাবুয়ে ব্যাটিংয়ে নেমে ৫ উইকেটে ১৪৪ রানের সংগ্রহ গড়ে তোলে। ম্যাচটিতে জিম্বাবুয়ের হয়ে ৩২ বলে ৫৭ রান করেন রায়ান বার্ল। আর মাসাকাদজা ও মুটুমবুদজির সংগ্রহ যথাক্রমে ৩৪ ও ২৭। এ তিনজনের ব্যাটে ভর করেই ফাইটিং স্কোর গড়ে জিম্বাবুয়ে। জয়ের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৯ রানেই বাংলাদেশের ৪ উইকেটের পতন! কোণঠাসা হয়ে পড়ে টিম বাংলাদেশ। সাব্বির আর রিয়াদের চেষ্টা বিফলে গেলে হাল ধরেন মোসাদ্দেক ও আফিফ। আফিফের সংগ্রহ ২৬ বলে ৫২ রান। তাকে সঙ্গ দেওয়া মোসাদ্দেক করেন ২৪ বলে ৩০ রান। বাংলাদেশ ২ বল হাতে রেখে ৩ উইকেটের কষ্টের জয় পায়। প্রথম ফিফটিতে ম্যাচ জিতিয়ে ম্যাচসেরা হন আফিফ।

দ্বিতীয় ম্যাচে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ‘সাইলেন্ট কিলার’ রিয়াদের ৬২ রান,মুশফিকের ৩২ রান ও লিটনের ৩৮ রানের মিশেলে ৭ উইকেটে ১৭৫ রানের দাপুটে স্কোর গড়ে সাকিবের দল। জবাবে ব্যাট করতে নেমে প্রত্যাশিত শুরু না করতে পেরে দিশেহারা হয়ে পড়ে উইকেট দিয়ে আসে। শেষদিক দিয়ে মুতুমবামি ৩২ বলে ৫৪ রান করে প্রতিরোধ গড়তে চাইলেও শেষ রক্ষা হয়নি। ১৩৬ রানে অলআউট জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশ ৩৯ রানের সহজ জয় পায়। ম্যাচসেরা হন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

জিম্বাবুয়ে বনাম আফগানিস্তান: প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তান টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ১৯৮ রানের পাহাড়সম টার্গেট দেয় জিম্বাবুয়েকে। আফগানদের হয়ে ৩০ বলে ৬৯ রানের জড়ো ইনিংস খেলেন নজিবুল্লাহ জাদরান। পাশাপাশি আফগানদের হয়ে গুরবাজ(৪৩) ও নবী(৩৮) উল্লেখযোগ্য রান করেন। বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৭ উইকেটে ১৬৯ রান করে মাসাকাদজার দল। ফলশ্রুতিতে ২৮ রানের জয় পায় আফগানিস্তান।

মাসাকাদজার বিদায়ী ম্যাচে আফগানিস্তান টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৫৬ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দেয় জিম্বাবুয়েকে।মাসাকাদজার বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে ৭ উইকেটের দাপুটে জয় পায় জিম্বাবুয়ে। ৫ টি ছক্কা ও ৪ টি চারের মারে ৪২ বলে ৭১ রান করে ম্যাচসেরা হন মাসাকাদজা। তিনি ক্যারিয়ারের শুরুটা সেঞ্চুরী দিয়ে করলেও শেষটা রাঙান ফিফটি দিয়েই।

আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৬:৩০ মিনিটে ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজের ফাইনালে লড়বে স্বাগতিক বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। চ্যাম্পিয়ন কে হবে তা জানতে ম্যাচটি দেখার কোন বিকল্প নেই!

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker