খেলাট্রেন্ডিং খবরহোমপেজ স্লাইড ছবি

বাংলাদেশ বনাম ভারতের টেস্ট সমীকরণ

এস.কে.শাওন: রঙিন পোশাকে ভারতের সাথে বুক চিতিয়ে লড়াই করে টিম বাংলাদেশ। ফলস্বরূপ ওডিয়াই ও টি-২০তে জয়ের দেখাও পেয়েছে টাইগাররা। কিন্তু ক্রিকেটের আভিজাত ফরম্যাট টেস্টে টিম ইন্ডিয়ার বিপক্ষে যে জয়টা অধরা রয়ে গেছে বাংলাদেশের। কাগজে-কলমে টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের চেয়ে অনেক পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। তবে এর মাঝেও রয়েছে কিছু অর্জন। চলুন জেনে নেই বাংলাদেশ বনাম ভারতের টেস্ট সমীকরণ।

১৯ বছর যাবত টেস্ট খেলা বাংলাদেশ দল এখন পর্যন্ত ভারতের বিপক্ষে মাত্র ৯টি টেস্ট খেলেছে। এর মধ্যে ৭ম্যাচে পরাজয়বরণ করতে হয়েছে। আর ড্র দেখেছে দুটি ম্যাচ। যদিওবা একটি ম্যাচ ড্র হয়েছিল বৃষ্টির আশীর্বাদে! ২০০০সালে টেস্ট স্ট্যাটাস পাওয়া দলটি প্রথম ম্যাচেই ভারতের মুখোমুখি হয় ।সে ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ইনিংসে ৪০০রানের সংগ্রহ পায় টাইগাররা। দ্বিতীয় ইনিংসে ভারত ৪২৯ রানে অলআউট হয়। পরের ইনিংসে বাংলাদেশ মাত্র ৯১ রানে অলআউট হয়ে যায়। সহজ টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৯ উইকেটের বিশাল জয় পায় ভারত। এ ম্যাচটিতে বাংলাদেশের প্রাপ্তি বলতে আমিনুল ইসলাম বুলবুলের সেঞ্চুরী(১৪৫), হাবিবুল বাশারের অর্ধশতক(৭১)। অধিনায়ক দুর্জয় পেয়েছেন ৬ উইকেট আর রফিক পেয়েছিলেন ৩টি উইকেট। ঐতিহাসিক টেস্ট ম্যাচটিতে নতুন দল হিসেবে এটাই বা কম কী ছিল বাংলাদেশের জন্য!

২০০৪ সালে ভারত এসেছিল বাংলাদেশ সফরে। সেবার ঢাকায় প্রথম টেস্টে ভারতের কাছে ইনিংস ও ১৪০ রানের বিরাট ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ। চট্টগ্রামে দ্বিতীয় টেস্টেও ইনিংস ও ৮৩ রানের ব্যবধানে হেরে বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ হতে হয়। ২০০৭ সালে আবারও বাংলাদেশ সফরে আসে ভারত। ২ ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটি ড্র হলেও দ্বিতীয়টিতে ইনিংস ও ২৩৯ রানের ব্যবধানে ম্যাচটি জিতে নেয় ভারত। ২০১০ সালে ২ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টে ১১৩ রানে জিতে ভারত। আর দ্বিতীয় ম্যাচেও ১০ উইকেটে বিশাল জয় পায় সফরকারীরা।

২০১৫ সালে ফতু্ল্লা টেস্টে ভারত ৪৬২ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২৫৬ রানে গুড়িয়ে যায় বাংলাদেশ। ফলোঅনে পড়ে আবারও ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। তারপর বৃষ্টি বাঁধায় ম্যাচটি ড্র হয়। ২০১৭ সালে মাত্র ১টি টেস্ট খেলতে ভারত যায় টিম বাংলাদেশ। হায়দ্রাবাদে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ইনিংসে ৬৮৭ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। ২য় ইনিংসে ৩৮৮রানে সব উইকেট হারায় টাইগাররা। পরের ইনিংসে ১৫৯ রান করে ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। লম্বা টার্গেট তাড়া করতে নেমে মাত্র ২৫০ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। ভারত ম্যাচটি ২০৮ রানে জিতে নেয়।

দু,দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে ভারতের হয়ে সর্বোচ রান করেন ক্রিকেট ঈশ্বর শচীন রমেশ টেন্ডুলকার(৮২০)। আর বাংলাদেশের হলেন মোহাম্মদ আশরাফুল (৩৮৬)। ভারতের পক্ষে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান শচীনের(২৪৮*)। বাংলাদেশের পক্ষে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান আশরাফুলে(১৫৮*) ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ ৩১ উইকেট শিকার জহির খানের। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ১৫ উইকেট সাকিবের। ভারতের হয়ে ১ ম্যাচে সর্বোচ্চ১১ উইকেট ইরফান পাঠানের, আর বাংলাদশের হয়ে সর্বোচ্চ৭ উইকেট সাকিবের। ভারতের হয়ে সবচেয়ে বেশি ক্যাচ(১৩) রাহুল দ্রাবিড়ের। বাংলাদেশের পক্ষে সবচেয়ে বেশি ক্যাচ (৯) মুশফিকের।

এখন পর্যন্ত ভারতের বিপক্ষে একটি টেস্টও জিততে পারেনি টাইগাররা। অন্যদিকে ভারত গত এক বছরে ১২টি টেস্ট খেলে একটি ম্যাচও হারেনি। অর্থাৎ বাংলাদেশের জন্য ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজটা কতোটা কঠিন হবে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে ইতিহাস তো নতুনের অপেক্ষায় থাকে! শুভকামনা টিম টাইগার্স।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker