প্রযুক্তিহোমপেজ স্লাইড ছবি

উইন্ডোজ টেন এর পনেরটি কাজের শর্টকাট

সাকিব রহমান সিদ্দিকী শুভ: Ctrl + C, Ctrl + V কিংবা Ctrl + Z এর মত শর্টকাট বা হট কি আমরা হরহামেশাই ব্যবহার করে থাকি। প্রচলিত জনপ্রিয় শর্টকাটের পাশাপাশি অধুনা উইন্ডোজ টেনে আছে আরো কিছু চমৎকার শর্টকাট যেগুলো আপনার কাজকে করে তুলবে আরো সহজ। সেইরকম ১৫টি শর্টকাটের কথাই নিচে লেখা হল।
১। ভার্চুয়াল ডেক্সটপ তৈরী ধরুন, আপনি বেশ কয়েকটা অ্যাপ ব্যবহার করে কোনো একটা কাজ করছেন। হুট করেই আপনার সম্পূর্ণ ভিন্ন একটা কাজ করার প্রয়োজন পড়ল। আগের অ্যাপগুলো মিনিমাইজ করে বা ক্লোজ করে আরেকটা কাজ করা একটু ঝামেলার। একটি শর্টকাট ব্যবহার করে সহজেই আপনি পেতে পারেন নতুন একটি ডেক্সটপ। Windows key+ Ctrl + D চাপলেই আপনার স্ক্রিনে একটি নতুন উইন্ডো ওপেন হবে।
২। একটি ভার্চুয়াল ডেক্সটপ থেকে অন্যটিতে যাওয়া নতুন উইন্ডোতে কাজ সেরে এবার আপনার আগের কাজটি করতে আগের উইন্ডোতে যাওয়ার পালা। সেক্ষেত্রে আপনাকে Windows key+ Ctrl চেপে ধরে রাইট এরো এবং লেফট এরো দিয়ে ডেক্সটপের মাঝে সুইচ করতে হবে। দেখা গেলো আপনি একটা এসাইনমেন্ট করছেন, ব্রেক নিতে একটু ইউটিউব বা ফেসবুক চালাতে ইচ্ছে করছে এই ধরনের সময় এই শর্টকাট আপনার প্রয়োজনে আসবে।
৩। এক ক্লিকে ডেক্সটপে ফিরে আসা অনেকগুলো অ্যাপ আপনার ডেক্সটপে ওপেন করা। হয়ত আপনার কোন একটা কাজে অ্যাপগুলোকে মিনিমাইজ করতে হবে। কাজটি এক ক্লিকেই করা সম্ভব। সেক্ষেত্রে আপনাকে Windows key+ M চাপতে হবে।
৪। টাস্কবার থেকে অ্যাপ খোলা আমরা টাস্কবারে অনেক অ্যাপ ই পিন করে রাখি। সেই অ্যাপগুলো কিবোর্ড শর্টকাটের মাধ্যমে সহজেই চালু করা সম্ভব। ধরা যাক বাঁ থেকে তিন নম্বর পিনড অ্যাপ ক্যালকুলেটর। ক্যালকুলেটর চালু করতে আপনাকে চাপতে হবে Windows key+ 3 । অর্থাৎ টাস্কবারে এপের ক্রমিক নম্বর আর উইন্ডোজ কি একত্রে চাপলে অ্যাপটি ওপেন হবে।
৫। স্ক্রিনকে দুইটি অ্যাপের জন্য ভাগ করে দেয়া আবার এসাইনমেন্টে ফিরে আসি। আপনার এসাইনমেন্ট করার জন্য উইকিপিডিয়া থেকে দেখে দেখে লেখা প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে আপনি একই স্ক্রিনে দুইটি অ্যাপ পাশাপাশি চালু রাখতে পারেন। সেজন্য একটি অ্যাপ স্ক্রিনে থাকা অবস্থায় Windows key+ লেফট এরো চেপে বাম পাশে এবং আরেকটি অ্যাপ সিলেক্ট করে ডানপাশে রাখতে পারেন।
৬। একটি অ্যাপ থেকে অন্যটিতে যাওয়া টাস্কবার নেভিগেশন ছাড়াও আপনি একটি অ্যাপ থেকে অন্য এপে যেতে পারেন কিবোর্ডের মাধ্যমেই। সেজন্য আপনাকে Ctrl+Alt+Tab বাটন গুলো একত্রে প্রেস করতে হবে। করলে আপনার ওপেন করা সবগুলো অ্যাপ স্ক্রিনে শো করবে। এরপর লেফট এরো রাইট এরো দিয়ে অ্যাপ চেঞ্জ করতে পারবেন।
৭। অ্যাপ ক্র্যাশ করলে কি করবেন অনেকসময় বিশেষত ভারী কোন কাজ করতে গেলে সফটওয়্যার ক্র্যাশ করতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকসময় সফটওয়্যারটি হ্যাং করতে পারে। সেক্ষেত্রে পিসি রিস্টার্ট দেয়া ছাড়াও অ্যাপটিকে বন্ধ করা যায়। সেজন্য Ctrl+Shift+Esc বাটন চেপে টাস্ক ম্যানেজার দিয়ে অ্যাপটিকে ক্লোজ করতে পারেন।
৮। ফাইল এক্সপ্লোরার চালু করা অনেকসময়ই আমাদের মাই কম্পিউটার বা অধুনা দিস পিসি বা অন্য কোনো ফোল্ডারে প্রবেশের দরকার পড়ে। সেক্ষেত্রে আমরা একটি শর্টকাটের মাধ্যমে ফাইল এক্সপ্লোরার চালু করতে পারি। Windows key + E চাপলে ফাইল এক্সপ্লোরার ওপেন হবে।
৯। ম্যাগনিফায়ারের ব্যবহার Windows key + – অথবা + বাটন ব্যবহার করে স্ক্রীনের যেকোনো কিছুকেই জুম ইন জুম আউট করা যায়। কার্সরটা লক্ষ্যবস্তুর উপর রেখে বাটনগুলো প্রেস করতে হবে।
১০। স্ক্রিনশট নেয়া Windows key + Print Screen (PrtSc) বাটন চাপলে স্ক্রীনশট সরাসরি ইমেজ হিসেবে হার্ডড্রাইভে সেইভ হবে।
১১। একশন সেন্টারের ব্যবহার এন্ড্রোয়ডের নোটিফিকেশন প্যানেলের মত পিসির একশন সেন্টার। এর মাধ্যমে ব্লুটুথ, ওয়াইফাই, ইন্টারনেট শেয়ার সহ নানা কাজ করা যায়। Windows key + A কয়েকবার চাপলেই একশন সেন্টার ওপেন হবে।
১২। সেটিংস মেনু তে যাওয়ার শর্টকাট উইন্ডোজ টেনের সেটিংস মেনুতে যাওয়ার জন্য Windows key + I বাটন দুইটি চাপতে হবে।
১৩। কর্টানা চালু করার শর্টকাট বর্তমানে ভার্চুয়াল পারসোনাল এসিসট্যান্ট হিসেবে কর্টানা, গুগল এসিসট্যান্ট, সিরি মানুষের জীবনে স্থান দখল করে নিচ্ছে। কর্টানাকে লিসেনিং মোডে চালু করতে Windows key + C বাটন চাপতে হবে।
১৪। উইন্ডোজ গেম বার উইন্ডোজ টেনের একটি চমৎকার ফিচার হল গেম বার। গেমবারের মাধ্যমে স্ক্রিন রেকর্ডিং, গেমার মোড, ব্রডকাস্টিং এর মত ফিচার ব্যবহার করতে পারবেন। শুধু গেম চলাকালীন সময়ে শুধু Windows key + G চাপতে হবে।
১৫। পিসি লক অনেকসময়ই পিসি খোলা রেখে আমাদের অন্য কোথাও যেতে হয়। সেক্ষেত্রে পিসি লক করে রাখা যেতে পারে। Windows key + L চাপলে আপনার পিসির লক স্ক্রিন চালু হবে। লক স্ক্রিনের সুবিধা পেতে পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker