ক্রিকেট

জয়ের এই নীতিই কী অজিদের অসৎ বানিয়েছে!

জোহানেসবার্গ: ২০১৩ সালে স্মিথদের গুরু হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছিল ড্যারেন লেম্যানকে৷ ক্যাঙ্গারুজদের দায়িত্ব নেওয়ার পর সাংবাদিকরা জানতে চেয়েছিলেন কোচ হিসেবে প্রথম কোন তিনটি জিনিসকে গুরুত্ব দেবেন লেম্যান? উত্তরে প্রাক্তন অজি বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান জানিয়েছিলেন তাঁর কাছে জরুরী তিনটি বিষয় হল, ‘জয় , জয় এবং জয়’৷

২০১৩ সালে দায়িত্ব নিয়ে ২০১৫ সালে অজিদের বিশ্বকাপ এনে দিয়েছিলেন লেম্যান৷ তাঁর কোচিংয়ে ৩০টি টেস্ট জিতেছে অজিরা৷ যতদিত পর্যন্ত স্মিথরা জিতছিলেন এবং অজি ক্রিকেটের গায়ে কোন দাগ লাগেনি ততদিন সব মহলেরই প্রশংসা কুড়িয়েছেন ড্যারেন৷ কিন্তু চলতি অজি-প্রোটিয়া টেস্ট সিরিজে পরিকল্পিতভাবে বল বিকৃত করার অপরাধে অভিযুক্ত হয়েছেন অজি অধিনায়ক স্মিথ, সহ-অধিনায়ক ওয়ার্নার এবং ওপেনার ক্যামেরন ব্যানক্রফট৷ এই ঘটনার জন্য লেম্যানের ‘যে কোন মূল্যে জয়’-এর মানসিকতাকে দায়ী করছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন ক্রিকেটাররা৷

মঙ্গলবার জোহানেসবার্গের সাংবাদিক সম্মেলনে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সিইও সাদারল্যান্ড বলেন, ‘শৃঙ্খলা, ব্যবহারে ধারাবাহিকতা এবং দৃঢ়তা ৷ ভালো পারফর্ম করার জন্য খুব জরুরী৷ এই ক্ষেত্রগুলোতে উন্নতি করতে হবে আমাদের৷’ এরপর তিনি যোগ করেন, ‘আমরা দেখতে পাচ্ছি এই বিষয়গুলির জন্য দায়ি প্রধান কোচই৷’

ল্যামনের মানসিকতার সমালোচনা করেছেন অস্ট্রেলিয়ার সিনিয়র ধারাভাষ্যকার জিম ম্যাক্সওয়েলও ,‘একধরনের অহঙ্কারী দলীয় সংস্কৃতির জন্ম দিয়েছেন ল্যামন৷ ওঁর অধীনে দল ভালো পারফর্ম করেছে৷ কিন্তু ক্রিকেটারদের মধ্যে ছোট মানসিকতা সঞ্চারিত হয়েছে৷’

ক্রিকেটার হিসেবেও একইরকম অহঙ্কারী ছিলেন ল্যামন৷ ২০০৩ সালে শ্রীলঙ্কার সঙ্গে একটি ম্যাচে ড্রেসিংরুমে বর্ণবিদ্বেষীমূলক মন্তব্যের অভিযোগ উঠেছিল তাঁর বিরুদ্ধে৷ শাস্তি স্বরূপ একটি ওয়ান ডে ম্যাচে থেকে বরখাস্ত করা হয় তাঁকে৷ স্মিথদের ছেঁটে ফেললেও এখনই দলের প্রধান কোচের দায়িত্ব থেকে ল্যামনকে সরাচ্ছে না ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া৷

নতুন বার্তা/কেকে

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker