বাক্যহোমপেজ স্লাইড ছবি

একটি বিজ্ঞাপন এবং ব্রেকফাস্টের অরেঞ্জ জুস!

অরেঞ্জ জুস অনেক দেশের সকালের নাস্তার একটি অন্যতম অংশ। আসল অরেঞ্জ জুস না থাকলেও বিভিন্ন পাউডার ড্রিঙ্কও কম জনপ্রিয় নয়। জেনে অবাক হবেন যে, আপনার নাস্তার টেবিলের অরেঞ্জ জুসের পেছনে রয়েছে ১৯০৭ সালের একটি বিজ্ঞাপন। ১৯০০ সাল। আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ায় আমাদের দেশের বাতাবি লেবুর মত কমলার বাম্পার ফলন চলছে। তবে সে সময় কমলা উৎপাদনকারীরা একটি সমস্যার সম্মুখীন হল। তারা দেখল যে পরিমানে ফল তারা উত্তোলন করছে সেই পরিমাণ চাহিদা বাজারে নেই। বিভিন্ন রকম চেষ্টা করেও তারা দেখল কমলার বিক্রয়ে খুব আহামরি কোন পরিবর্তন আসছে না।

এমতাবস্থায়, ১৯০৭ সালে তারা তৎকালীন একটি বিজ্ঞাপন সংস্থার কাছে যায়। প্রতিষ্ঠানটির নাম Lord & Thomas advertising agency এবং তাদের ক্যাম্পেইনের দায়িত্বে ছিলেন Albert Lasker। তিনি অনেক ভাবনা-চিন্তা করে নিচের স্ট্রাটেজিগুলো ঠিক করেনঃ সকল কমলা উৎপাদনকারীকে একটি নামের আওতায় আনলেন “Sunkist” এবং কমলার কনজাম্পশন বাড়ানোর জন্যে কমলাকে রিব্র্যান্ড করলেন ‘অরেঞ্জ জুস” হিসেবে।

যেহেতু অরেঞ্জ জুস বানানোর সাথে তখনও কনজিউমাররা ততটা পরিচিত নন তাই Sunkist এর ব্যানারে “Drink an Orange” ক্যাম্পেইন শুরু হলো। যার উদ্দেশ্য অরেঞ্জ জুস বানানোর উপকরণ, অরেঞ্জ জুস এক্সট্রাক্টর বিক্রয় করা। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে তাদের উদ্দেশ্য ছিল কিভাবে অরেঞ্জ থেকে অরেঞ্জ জুস তৈরি করা যায় তা শেখানো। এবং ধীরে ধীরে অরেঞ্জ জুস পান করাকে একটি অভ্যাসে পরিণত করা।

এবং তারা সফল হয়েছিলও বটে। “Drink an orange” ক্যাম্পেইনের পর কমলা কনজাম্পশন ৪০০% বেড়ে গিয়েছিল। এই ক্যাম্পেইনের তার থেকেও বড় সফলতা হচ্ছে আজও ঘরে ঘরে নাস্তার টেবিলে অরেঞ্জ জুসের গ্লাস।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker