বাক্যবিশ্লেষণ

ম্যান্ডেলা ইফেক্টের আদ্যোপান্ত

বর্ষণ হাসান অয়ন: ২০১৬ সালের আজকের এই দিনে বব ডিলান সাহিত্যে নোবেল পান। তার নোবেল পাওয়ার ঘটনায় দুনিয়া জুড়ে বিস্ময় ঝড়ের পাশাপাশি একটা বিভ্রান্তির খবরও উঠে আসে। দেখা যায়, অনেকেই এতোদিন ধরে মনে করতেন, ডিলান আসলে বেঁচে নেই। আমি নিজেও জানতাম ডিলান সাহেব মরে ভূত হয়ে গেছেন।

কিন্তু তখন দেখলাম তিনি বহাল তবিয়তেই বেঁচে ছিলেন (এখনো আছেন)। তাহলে, এই এতো মানুষের এতোদিন ধরে ভুল জানার ব্যাপারটা আসলে কী? এরকম ঘটনা প্রকাশের জন্য সুন্দর একটা টার্ম আছে ইংরেজীতে। ম্যান্ডেলা ইফেক্ট। ডিলানের মতোই আরেক কিংবদন্তী নেলসন ম্যান্ডেলার নামে এই নামকরণ করা হয়। ম্যান্ডেলা ইফেক্ট হচ্ছে এমন এক রহস্যময় সাইকোলজিক্যাল সিচুয়েশন, যখন বিপুল সংখ্যক মানুষ একইসাথে স্মৃতিভ্রমের স্বীকার হয়। অর্থাৎ, বাস্তবে কোনো ঘটনা একরকম, কিন্তু তারা স্মৃতি থেকে মনে করার চেষ্টা করলে দেখতে পান তাদের স্মৃতিতে জমা হয়ে থাকা ঘটনাটা অন্যরকম, কখনো কখনো সম্পূর্ণ বিপরীত।

ম্যান্ডেলাকে ঘিরে এরকম একটা ঘটনা ঘটার কারণেই, ইফেক্টের নাম তার নামানুসারে দেয়া। ব্যাপারটা এরকম, ম্যান্ডেলা যখন জেল থেকে ছাড়া পান, তখন অনেকেই চরম বিস্ময়ের সাথে আবিষ্কার করে যে তিনি বেঁচে আছেন, অথচ তখন তারা এতোদিন ধরে জানতো নেলসন বন্দী অবস্থাতেই মারা গেছেন সেই ১৯৮০ সালে। শুধু তাই নয়, ম্যান্ডেলার এহেন মৃত্যুতে তখন শহরে শহরে যে দাঙ্গা বেঁধে গিয়েছিল, দেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছিল সহিংসতা, সেসব কিছুও তারা মনে করতে পারেন স্পষ্ট। মজার ব্যাপার হলো, এরকম ঘটনা একটা দুটো নয়, আরো অনেক, অনেক আছে। ম্যান্ডেলা ইফেক্টের সঠিক ব্যাখ্যা দেয়া আজ পর্যন্ত সম্ভব হয়নি।

সাইকোলজির ভাষায় এমনতর ঘটনা ফলস মেমোরি সিনড্রোমের কাতারে পড়ে। অর্থ্যাৎ, আপনার মস্তিষ্ক কখনো কখনো মিথ্যা স্মৃতি তৈরী করে। কেনো করে? সঠিক উত্তর নেই। তবে কনফ্যাবুলেশন (Confabulation)’র মাধ্যমে হয়তো কিছুটা ব্যাখ্যা করা যায়৷ এই কনফ্যাবুলেশনকে অনেকটা সৎ মিথ্যা বলা চলে। মানে ধরুন, আপনি কাউকে শৈশবের গল্প বলছেন। আপনাদের বাসার সামনে একটা গাছ ছিলো, সেই গাছে দোলনা বেঁধে আপনি দোল খেতেন৷ কিন্তু কী গাছ সেটা এতোদিন পরে এসে আর মনে নেই, স্মৃতি মুছে জায়গাটা ব্ল্যাঙ্ক হয়ে গেছে৷ মস্তিষ্ক তখন চেষ্টা করে এই ব্ল্যাঙ্ক জায়গাটা পূরণ করতে। আর এই কাজ করতে গিয়ে সে আপনার নিজেকেও ধোঁকা দেয়, মিথ্যা স্মৃতি তৈরী করে৷

হয়তো মস্তিষ্ক আম গাছের স্মৃতি তৈরী করলো। তখন কিন্তু আপনি নিজেও শৈশবের গাছটাকে আম গাছ হিসেবেই মনে করতে পারবেন। অথচ হয়তো আসল গাছটা ছিলো কামরাঙ্গা। তবে সাইফাই জনরার পাঁড় ভক্ত যারা আছেন, তাদের মতে, ম্যান্ডেলা ইফেক্ট প্যারালাল ইউনিভার্সের অস্তিত্বের প্রমাণ। অন্য কোনো টাইমলাইনের প্যারালাল ইউনিভার্স আমাদেরটায় ভুলক্রমে ঢুকে পড়ে মাঝে সাঝে। যে কারণে ইতিহাস বদলে যায়, পালটে যায় বাস্তবতা, স্মৃষ্টি হয় ভ্রম। হয়তো অন্য কোনো ইউনিভার্সে ম্যান্ডেলা সত্যিই মারা গেছেন। হয়তো আপনার মস্তিষ্ক সে তথ্য জানে, কিন্তু আপনি জানেন না।

Related Articles

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker